অনলাইন ইওর হেল্‌থ ডেস্কঃ লাইভ সায়েন্সের নতুন একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে  যে, মিষ্টি পানীয় পানে প্রতি বছর বিশ্বে ১ লাখ ৮৪ হাজার মানুষের অকাল মৃত্যু ঘটে। এতে শুধু যুক্তরাষ্ট্রেই মারা যায় ২৫ হাজার মানুষ। । ২০১৩ সালে এক বিজ্ঞান বিষয়ক বৈঠকে সর্বপ্রথম ওই মুত্যুর পরিসংখ্যান উপস্থাপন করা হয়। বিজ্ঞানীরা বলেছেন গবেষণায় দেখা গেছে, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ ও ক্যানসারের ফলে মৃত্যুর ঘটনাগুলির পেছনে সরাসরি মিষ্টি সোডা, ফলের জুস, স্পোর্টস/এনার্জি ড্রিঙ্কস ও বরফ চা খাওয়াকে কারণ হিসেব উল্লেখ করা যেতে পারে। এছাড়া ক্যান সুগার, বিট সুগার ও হাই ফ্রুকটোজ কর্ন সিরাপে প্রস্তুত বোতলজাত পানীয়কেও মিষ্টিজাতীয় পানীয়ের তালিকায় রেখেছেন গবেষকেরা। ফ্লু ভাইরাসের সংক্রমণে বছরে যত সংখ্যক মানুষ মারা যায় মিষ্টি পানীয় পানে মৃত্যুর সংখ্যাও তার সমান। ৫০টি দেশে এই গবেষণা চালানো হয়।

গবেষক দলের জেষ্ঠ বিজ্ঞানী এবং যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটসের টাফটস বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্রিডম্যান স্কুল অব নিউট্রিশন সায়েন্স এন্ড পলিসি বিভাগের ডিন ড. দারিয়ুশ মুজাফ্ফারিয়ান বলেন, ‘বিশ্বব্যাপী খাদ্য তালিকা থেকে মিষ্টিজাতীয় পানীয় পুরোপুরি বাতিল করা জরুরি হয়ে পড়েছে।’ তিনি বলেন, প্রত্যক্ষ প্রমাণ রয়েছে যে, মিষ্টিজাতীয় পানীয় মানুষকে স্থুলতায় আক্রান্ত করে। আর স্থুলতার কারণে উল্লেখিত রোগগুলো সৃষ্টি হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। লাইভ সায়েন্স জানিয়েছে, এর আগের কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে, স্থুলতার কারণে সৃষ্ট রোগ-বালাইয়ে প্রতি বছর ১ কোটি ৭০ লাখেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে, স্থুলতা সংশ্লিষ্ট রোগ- টাইপ টু ডায়াবেটিসে বছরে অন্ততঃ ১ লাখ ৩৩ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়; হৃদরোগে মৃত্যু হয় ৪৫ হাজার মানুষের আর ক্যানসারে মারা যান ৬ হাজার ৪৫০ জন। মিষ্টিজাতীয় পানীয় পানে সৃষ্টরোগে সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা যায় ল্যাটিন আমেরিকা ও ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে। মেক্সিকোর মোট জনসংখ্যার ১০ শতাংশই ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। এমনকি দেশটির ৪৫ বছরের কম বয়সে মারা যাওয়াদের ৩০ শতাংশই মিষ্টিজাতীয় পানীয় পানে সৃষ্ট রোগে মারা যায়। অন্যদিকে, জাপানে মিষ্টিজাতীয় পানীয় পানে মৃত্যুর হার খুবই কম। জাপানের মানুষেরা এমনকি চা-তেও কোনো চিনি মেশান না। মার্কিনিরা প্রতিদিন গড়ে ২২.২ চা চামচ চিনির সমপরিমাণ (৩৫৫ ক্যালোরি) মিষ্টিজাতীয় খাদ্য গ্রহণ করেন। আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশন (এএইচএ) জানিয়েছে, সাধারণত বোতলজাতীয় পানীয়ই ওই চিনির উৎস। এই চিনি ভোগের ফলে শরীরে কোনো পুষ্টি যোগ হয় না বরং অতিরিক্ত ক্যালোরি যোগ হয়।

টি মন্তব্য

মন্তব্য বন্ধ

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।