অনলাইন ইওর হেল্‌থ ডেস্কঃ সারা দেশে ওষুধের লাইসেন্সবিহীন দোকানের পরিসংখ্যান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে নেই। দশম জাতীয় সংসদের ষষ্ঠ (বাজেট) অধিবেশনে বৃহস্পতিবার সরকারদলীয় সংসদ সদস্য আ. ফ. ম. বাহাউদ্দিন নাসিমের টেবিলে উত্থাপিত সাধারণ প্রশ্নের জবাবে একথা জানান স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। । মন্ত্রী বলেন, সারা দেশে ওষুধের লাইসেন্সধারী দোকান প্রায় ১ লাখ ১৮ হাজার। লাইসেন্সবিহীন দোকানের পরিসংখ্যান এই মুহূর্তে নেই। তবে জেলা পর্যায়ে কর্মরত ওষুধ তত্ত্বাবধায়ক ও ওষুধ পরিদর্শকদের লাইন্সেসবিহীন দোকান পরিদর্শনপূর্বক তালিকা প্রস্তুত করে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, লাইসেন্সবিহীন দোকানের ব্যাপারে সরকার সচেতন আছে। ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর এ ব্যাপারে মনিটরিং করছে। এসব দোকানের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। নীলফামারী-৪ আসনের বিরোধী দলীয় সংসদ সদস্য শওকত চৌধুরীর তারকা চিহ্নিত আরেক প্রশ্নের জবাবে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, রাজধানী ঢাকার মধ্যে অনুমোদনপ্রাপ্ত বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকের সংখ্যা ৮৩৬টি। ঢাকা-১১ আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য এ কে এম রহমতউল্লাহ প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে ২৭৭টি অ্যালোপ্যাথিক ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২০৯টির উৎপাদন চালু আছে। তার মধ্যে অধিকাংশ বৃহৎ কারখানা নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় শিল্পবর্জ্যের দূষণরোধকল্পে ব্যবস্থা নিয়েছে। আর নতুনভাবে স্থাপিত অধিকাংশ ওষুধ কারখানায় তরল বর্জ্য পরিশোধনাগার (ইটিপি) স্থাপন করা হচ্ছে।

টি মন্তব্য

মন্তব্য বন্ধ

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।