অনলাইন ইওর হেল্‌থ ডেস্কঃ  ঢাকাসহ দেশের ছয়টি মহানগরে যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ এখন বড় চ্যালেঞ্জ। দ্রুত নগরায়ন, ভাসমান জনগোষ্ঠী, ঘনবসতি, বস্তিগুলোতে অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশ, অনেক রোগী শহর ছেড়ে গ্রামে চলে যাওয়া, গার্মেন্ট কর্মীর সংখ্যা বৃদ্ধি, সর্বোপরি সচেতনতার অভাবে বিভাগীয় শহরগুলোতে যক্ষ্মায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে চলেছে। জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচী (এনটিপি)-এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২০১৪ সালে ১ লাখ ৮০ হাজার শনাক্তকৃত যক্ষ্মারোগীর মধ্যে শুধু ঢাকা বিভাগেই রয়েছেন ৬০ হাজার।

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে নগর যক্ষ্মা বিষয়ক সাংবাদিক ওরিয়েন্টেশনে বক্তারা এসব তথ্য দেন। এতে গণমাধ্যমের প্রায় ৩০ জন স্বাস্থ্য বিষয়ক সাংবাদিক অংশগ্রহণে প্রোগ্রামের মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির বিভাগীয় কনসালট্যান্ট ডা. আহমেদ পারভেজ জাবীন। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি (এনটিপি), বাংলাদেশ হেলথ রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএইচআরএফ) ও বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক যৌথভাবে এ ওরিয়েন্টেশনের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে যক্ষ্মারোগ নিয়ন্ত্রণে ও চ্যালেঞ্জ বিষয়ে বিস্তারিত বিবরণ, তথ্য ও সুপারিশ তুলে ধরা হয়। ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামে আলোচকরা জানান, দেশে যক্ষ্মারোগীর আক্রান্তের হার প্রতি লাখে ২২৫ জন। এর মধ্যে বছরে নতুন রোগীর হার প্রতি লাখে ১০০ জন। ২০১৩ সালে এর সফলতার হার ৯৪ শতাংশ। বিশ্বের মোট যক্ষ্মারোগীর ৩৮ শতাংশ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বাস করে।

চিকিৎসা ছাড়া একজন যক্ষ্মারোগী বছরে ১০ জন সুস্থ লোককে আক্রান্ত করতে পারে। বিশ্বের যে ২২টি দেশের মধ্যে যক্ষ্মারোগীর সংখ্যা সর্বাধিক, বাংলাদেশ তার মধ্যে ষষ্ঠ অবস্থানে রয়েছে। এসময় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ব্র্যাকের টিবি কন্ট্রোল প্রোগ্রাম-এর সিনিয়র ম্যানেজার ডা. কাজী আল মামুন সিদ্দিকী। সঞ্চালনায় ছিলেন বাংলাদেশ হেলথ রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএইচআরএফ)-এর সভাপতি তৌফিক মারুফ এবং আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির প্রোগ্রাম কনসালট্যান্ট ডা. মজিবুর রহমান ও অতিরিক্ত পরিচালক ডা. নজিবুর রহমান, এটিএন বাংলার বার্তা সম্পাদক শাহনাজ মুন্নী, প্রথম আলোর বিশেষ প্রতিনিধি শিশির মোড়ল, দৈনিক সংবাদের সিনিয়র রিপোর্টার সেবিকা দেবনাথ, চ্যানেল আইয়ের রিপোর্টর জান্নাতুল বাকেয়া কেকা, দৈনিক জনকণ্ঠের সিনিয়র রিপোর্টার নিখিল মানকিন, ভোরের কাগজ’র রিপোর্টার স্বপ্না চক্রবর্তী প্রমুখ। অনুষ্ঠানে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন অ্যাডভোকেসি ফর সোশ্যাল চেইঞ্জ কর্মসূচির সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার শাগুফতা সুলতানা।

টি মন্তব্য

মন্তব্য বন্ধ

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।