অধ্যাপক ডা. এসএমএ এরফান:  চমৎকার একটি বিষয় নিয়ে ইদানীং বেশ হৈচৈ হচ্ছে। বিষয়টি হচ্ছে বিশ্ববিখ্যাত খেলোয়াড় আর্জেন্টিনার ফুটবলের বরপুত্র ম্যারাডোনা। ম্যারাডোনা তার খেলোয়াড়ি জীবন নিয়ে অনেকবার আলোচনায় শীর্ষে এসেছেন; এসেছেন মাদকাসক্তের বিষয় নিয়েও। কিন্তু এবার তিনি এসেছেন সম্পূর্ণ ভিন্ন ভাবে। সেটি হচ্ছে, তার স্বাস্থ্য। যারা খোঁজখবর রাখেন, তারা জানেন যে মাদকাসক্তির কারণে ম্যারাডোনা খুব মোটা হয়ে গিয়েছিলেন। এত মোটা হয়েছিলেন যে নিজের ওজনও নিজে বহন করতে পারছিলেন না। নিজ দেশে আর্জেন্টিনায় চিকিৎসা ব্যর্থ হওয়ার পর কিউবার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট  ক্যাস্ট্রোর অতিথি হিসেবে কিউবায় যান চিকিৎসার জন্য। চিকিৎসাও চলে পুরোদস্তর। কিন্তু ফল যা, সেই- মোটা ম্যারাডোনা আর শুকান না। সর্বশেষ উপায় হিসেবে চিকিৎসকরা বাতলান এক বিশেষ পথ। সেটি হচ্ছে, এক বিশেষ ধরনের পাকস্থলীর সার্জারি। ম্যারাডোনাও রাজি হলেন এবং একদিন সফল ভাবে অপারেশন সম্পন্ন হলো। এবারের চিকিৎসা ম্যাজিকের কাজ করল। ম্যারাডোনা ফিরে এলেন আগের খেলোয়াড়ি জীবনের ফিগারে। সবাই বিস্মিত হলেন এ ম্যাজিক চিকিৎসায়। এখন যক্তরাষ্ট্রসহ উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকায় চলছে এ ম্যাজিক সার্জারির জোয়ার। লাইন ধরে মোটা লোকজন দ্বরস্থ হচ্ছেন সার্জনের- এ অপারেশন করানোর জন্য। তিনি বেশ খুশি এ সাফল্যে- হোক না হাজার হাজাার ডলার খরচ। অনেকে আবার ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা ঠুকে দিয়েছেন বিনা পয়সায় এ অপারেশন করানোর জন্য। জমজমাট অবস্থা! অপারেশন করানোর আগে ও পরের ছবি। অপারেশন করানোর আগে ও পরের ছবি।

Former Argentine football star Armando Maradona waves to the press 16 February 2005 in Cartagena, Colombia. Maradona said that he is in  Cartagena just for holidays, denying rumors affirming that he arrived in town to submit to surgery to reduce his belly.   AFP PHOTO (Photo credit should read STR/AFP/Getty Images)

Former Argentine football star Armando Maradona waves to the press 16 February 2005 in Cartagena, Colombia. Maradona said that he is in Cartagena just for holidays, denying rumors affirming that he arrived in town to submit to surgery to reduce his belly. AFP PHOTO
(Photo credit should read STR/AFP/Getty Images)

কি এই অপারেশন? এটি একটি জটিল অপারেশন হলেও এর মূলনীতি খুব সোজা। এর মূলনীতি হচ্ছে সোজা কথায় পাকস্থলীর আকার কমিয়ে দেয়া। এসব মোটা লোকজনের ক্ষেত্রে দেখা যায়, তারা খাওয়া-দাওয়া নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন না। যতই চিকিৎসক বারণ করুক, খাওয়া-দাওয়ার ব্যাপাওে এরা বেশ ‘উদার’। ডায়েট কন্ট্রোলের যে উপদেশই চিকিৎসক বা ডায়েটিশিয়ান দিন না কেন, তা তারা মানেন না; আর মানলেও তা সময়িক। বেশি খাওয়ার ফলে তাদেও পাকস্থলী বড় হয়ে যায়। এতে তাদের ক্ষুধাও লাগে বেশি। আর অল্প খেলে তার ক্ষুধা নিব্রত্ত হয় না। এসব কারণে তিনি বেশি খান, আর বিষয়টি চলতে থাকে চক্রাকারে। আমাদের আলোচ্য চিকিৎসায় একটি অপারেশনের মাধ্যমে পাকস্থলীর চিকিৎসার আকার অত্যন্ত ছোট করে দেয়া হয়। এক, পেট কেটে পাকস্থলীতে সেলাই করে বা স্ট্রাপলিংয়ের মাধ্যমে একটি অত্যন্ত ক্ষুদ্্র পাকস্থলী তৈরী করা হয়। এ অপারেশনটি আমরা এখন লেপারোস্কোপির সাহায্যেও করছি। এতে যে পাকস্থলী তৈরী করা হলো, সেটি বেশ ছোট। এটি সহজেই ভরে যায় এবং দ্রুত রোগীর ক্ষুধা নিবৃত্তির ভাব হয়। ফলে রোগী বেশি খাবার খান না। খাদ্য গ্রহন স্বাভাবিক ভাবেই নিয়ন্ত্রিত হয়ে যায়। রোগীকে কষ্ট করতে হয় না বিধায় দ্রুত রোগীর ওজন কমে যায়; কমে যায় কোলেস্টেরল ও ডায়াবেটিস। আর এতে মোটাসোটা রোগী হয়ে যান ফিটফাট ও স্মার্ট; তার হৃৎপিন্ড বেশ সবল হয়।

diego-maradona-argentina-576x400                                                                                      অপারেশনের পর ম্যারাডোনার বর্তমান ছবি

তাই বলা যায়, মেদ কমানো এখন বেশ সোজা; আর তাই এখন বিশ্ব বা বলা যায় ‘মোটাবিশ্ব’ হুমড়ি খেয়ে পড়েছে এ চিকিৎসার দিকে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বেশ কয়েকটি মামলাও হয়েছে, এর খরচ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি যাতে বহন করে। বাংলাদেশেও এ চিকিৎসা এখন বেশ সাফল্যজনক হারে হচ্ছে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মাত্র ১০ থেকে ১৫ শতাংশ খরচে। আমরাও এরই মধ্যে বেশকিছু অপারেশন করেছি অত্যন্ত সফলতার সঙ্গে। তাই বালা যায়, বাংলাদেশেও মেদ-ভুঁড়ি কোন সমস্যা নয়।
অধ্যাপক ডাঃ এস, এম, এ, এরফান
বিভাগীয় প্রধান, সার্জারী বিভাগ
এম এইচ শমরিতা হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ

জাপান বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশীপ হাসপাতাল
জিগাতলা, ধানমন্ডি

টি মন্তব্য

মন্তব্য বন্ধ

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।