অনলাইন ইওর হেল্‌থ ডেস্কঃ জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে, বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির ফলে তৃণভোজী বড় আকারের প্রাণীদের প্রায় ৬০ শতাংশ বিলুপ্তির ঝুঁকিতে রয়েছে। এসবের মধ্যে গন্ডার, হাতি ও গরিলা উল্লেখযোগ্য। তৃণভোজী ৭৪টি প্রজাতির বর্তমান অবস্থা বিশ্লেষণ করে সায়েন্স অ্যাডভান্সেস সাময়িকীতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞানীরা বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে বিশ্বজুড়ে বহু প্রজাতি বিপর্যস্ত হতে পারে। এমনকি প্রাণীশূন্য হয়ে পড়তে পারে অনেক এলাকা। নেচার সাময়িকীতে গত বৃহস্পতিবার প্রকাশিত আরেকটি গবেষণা প্রতিবেদন বলছে, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলায় এখনই ব্যবস্থা না নিলে প্রতি ছয়টি প্রজাতির মধ্যে একটি বিলুপ্ত হয়ে যাবে।

Elephantতৃণভোজী ৭৪টি প্রজাতির বর্তমান অবস্থা বিশ্লেষণ করে সায়েন্স অ্যাডভান্সেস সাময়িকীতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, চোরা শিকার এবং আবাস ধ্বংসের শিকার হয়ে পৃথিবী থেকে ক্রমশ হারিয়ে যাচ্ছে এসব প্রাণী। যুক্তরাষ্ট্রের অরেগন স্টেট ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক উইলিয়াম রিপলের নেতৃত্বে বিভিন্ন দেশের ১৫ জন বিজ্ঞানী কমপক্ষে ১০০ কেজি ওজনের বিভিন্ন প্রাণীর ওপর গবেষণা চালান। এসবের মধ্যে রয়েছে বলগা হরিণ থেকে শুরু করে আফ্রিকান হাতি পর্যন্ত নানা ধরনের প্রজাতি। অধ্যাপক রিপল বলেন, অনেক প্রাণী হারিয়ে যাওয়ায় বিস্তীর্ণ অরণ্য, তৃণভূমি ও মরুভূমিতে প্রাণীশূন্য এলাকার পরিমাণ বাড়ছে।

যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্য প্রাণী সংরক্ষণ গবেষণা ইউনিটের অধ্যাপক ডেভিড ম্যাকডোনাল্ড বলেন, সহজাত দক্ষতাসম্পন্ন বড় বিড়াল বা নেকড়ের মতো তৃণভোজী প্রাণীগুলো ভীষণ খারাপ অবস্থায় আছে। অতিমাত্রায় শিকার এবং বসবাসের পরিবেশ নষ্ট হওয়ার ফলে এসব প্রাণী বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। পাশাপাশি খাবারের অভাবও এসব প্রাণীর অস্তিত্ব সংকটের একটি বড় কারণ। গবেষকেরা আরও বলেন, তৃণভোজী বন্য প্রাণীরা খাবার সংগ্রহ করতে গিয়ে গবাদিপশুর সঙ্গে প্রতিযোগিতায় পেরে উঠছে না। চোরা শিকারিদের কাছে গন্ডারের শিং সোনা, হীরা বা মাদকদ্রব্যের চেয়েও দামি। বর্তমান পরিস্থিতি অব্যাহত থাকলে আফ্রিকার জঙ্গলে ২০ বছরের মধ্যে বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে প্রাণীটি। তৃণভোজী বন্য প্রাণী বিলুপ্তি সবচেয়ে বেশি ঘটছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, ভারত ও আফ্রিকায়। ইউরোপ ও উত্তর আমেরিকায় ইতিমধ্যে বহু তৃণভোজী প্রাণী একেবারে হারিয়ে গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের কানেটিকাট বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস্তুতন্ত্র ও বিবর্তনমূলক জীববিদ্যা গবেষক মার্ক আরব্যান বলেন, বিশ্বজুড়ে প্রাণী বিলুপ্তি ঠেকাতে চাইলে জলবায়ুর অধিকতর পরিবর্তন সীমিত রাখতে জরুরি ভিত্তিতে পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন। বৈশ্বিক উষ্ণতা প্রতি ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধিতে নতুন নতুন প্রজাতি একেবারে হারিয়ে যাওয়ার ঝুঁকির মধ্যে পড়ছে। এসব প্রজাতিকে বাঁচানোর জন্য আরও গবেষণা করারও দরকার আছে।

সূত্র: এএফপি ও বিবিসি/ প্রথম আলো 

টি মন্তব্য

মন্তব্য বন্ধ

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।