অনলাইন ইওর হেল্‌থ ডেস্কঃ তারুণ্যে  যেকোনো টিনএজারই নিজেকে অনেক শক্তিশালী  বলে মনে করেন আর এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু, দিনের শেষে বর্ষীয়ান নাগরিকরা যেকোনো দিনই পিছনে ফেলে দেবেন তরুণদের।  মার্কিন গবেষকরা দাবি করেছেন, শারীরিক ক্লান্তির প্রশ্নে বর্ষীয়ান নাগরিকরা যেকোনো দিনই পিছনে ফেলে দেবেন তরুণদের। গবেষণার জন্য ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সি তরুণদের বেছে নেওয়া হয়। তারা প্রত্যেকেই নিঃসংকোচে স্বীকার করে নিয়েছেন, দৈনন্দিন কাজ করতে গিয়েই সবচেয়ে বেশি তারা অবসন্ন হয়ে পড়েন। ক্লান্তির একটা মাপকাঠিও ঠিক করা হয়। যেখানে ক্লান্তির সর্বোচ্চ সীমা ধরা হয় ৬, অর্থাৎ, ৬ মানে খুব ক্লান্ত। বয়স বাড়ার সঙ্গেই কেন শারীরিক ক্লান্তি কমে আসে, তার কয়েকটা কারণও খুঁজে পেয়েছেন গবেষকরা। একজন দিনে কতক্ষণ ঘুমোচ্ছেন, কটা সন্তান রয়েছে, কোথাও চাকরি করছেন কি না, করলে, কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ কেমন এবং সেইসঙ্গে তাঁর শারীরিক স্বাস্থ্য কেমন, এসবই ক্লান্তির সঙ্গে সম্পর্কিত। এ-ও দেখা গিয়েছে, ছেলেদের তুলনায় তাড়াতাড়িই ক্লান্ত হয়ে পড়েন মেয়েরা। এবং, যাঁর যত বেশি সন্তান, তার শারীরিক ক্লান্তি তত বেশি। সুস্বাস্থ্যের অধিকারীদের ক্লান্তিবোধ কম হবে, এটা স্বাভাবিক। পাশাপাশি দেখা গিয়েছে, উচ্চশিক্ষিতদের ক্ষেত্রে ক্লান্তির হার তুলনায় কম।

লন্ডন স্কুল অফ ইকনমিক্স অ্যান্ড পলিটিক্যাল সায়েন্স-এর তরফে ১৩ হাজার মার্কিনির উপর এই সমীক্ষা চালানো হয়। সম্প্রতি সেই গবেষণা রিপোর্টটি প্রকাশিত হয়েছে বার্ধক্যবিদ্যা সংক্রান্ত জার্নাল অফ জারন্টোলজি সিরিজে। এই গবেষক দলের অন্যতম লোউরা কুডরনার কথায়, মার্কিন সমাজে ‘ক্লান্ত’ বলাটা পদমর্যাদার প্রতীক। কিন্তু, তার পরেও যেটা দেখা যাচ্ছে, প্রবীণদের ক্ষেত্রে ক্লান্তির গড় মাপকাঠি যেখানে ১.৮, সেখানে তরুণদের ক্ষেত্রে সেটা ২.৫। এই গবেষণায় মার্কিন সেন্সাস ব্যুরোর একটি রিপোর্টেরও সাহায্য নেওয়া হয়। অনেক কিছুর সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়াকেও টিনএজারদের ক্লান্তির একটা অন্যতম ফ্যাক্টর বলে মনে করছেন গবেষকরা। দেখা গিয়েছে, প্রবীণদের সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝোঁক সে অর্থে নেই। সেখানে তরুণরা দিনের অনেকটা সময় বুঁদ হয়ে, এনার্জির অপচয় করেন। গবেষকদের কথায়, বয়স বাড়লেই ক্লান্তি বাড়বে এই ভ্রান্ত ধারণাটাকে ভেঙে দিয়েছে এই রিপোর্ট। বা ঘুম ভালো হলেই ক্লান্তি থাকবে না, তা-ও নয়। ‘ভালো বোধ’ করাটাও চনমনে থাকার উপায়। প্রবীণদের দৈনন্দিন জীবনে সেই feel better ব্যাপারটা পজিটিভ এনার্জি হিসেবেই কাজ করে।

টি মন্তব্য

মন্তব্য বন্ধ

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।