অনলাইন ইওর হেল্‌থ ডেস্কঃ   দারুচিনি, ইংরেজি নাম Cinnamon স্বাভাবিক পরিবেশে এই বৃক্ষের উচ্চতা দশ থেকে পনের মিটার পর্য্যন্ত হয়ে থাকে। আদি নিবাস শ্রীলংকায়। আজ কাল ইন্দোনেশিয়া, ভারত, বাংলাদেশ ও চীন প্রভৃতি দেশে ও উৎপাদিত হচ্ছে। দেখতে কিছুটা তেজপাতা বৃক্ষের মতো এই বৃক্ষের চামড়াটা মসলা হিসেবে ব্যাবহৃত হয়। দারুচিনি থেকে সুগন্ধ যুক্ত তৈল  পাওয়া যায়।

দারুচিনি শুধু মসলাই না,চিকিৎসাশাস্ত্রে এর খুবই গুরুত্ব রয়েছে। দারুচিনিতে সিনাসিল এ্যালকোহল,লিনালোল, ইউজিনল,বেনজালডিহাইড,সেফারোর ইত্যাদি রাসায়নিক পর্দাথ আছে। আর্য়ুবেদের মতে,দারুচিনি-কফ,বায়ু,চুলকানি,আমাশয় ও অরুচি দূর করে এবং হৃদরোগ,মূত্রাশয়ের অসুখ,অর্শ,কৃমি ও সর্দির উপশম করে। ক্ষুধামন্দা ও বদ হজমের জন্য খাবারপর গরম পানিতে দিয়ে দারুচিনি খেলে উপকার পাওয়া যায়।গলার ক্ষতে,সর্দিকালি,কন্ঠস্বরের বিকৃতিতে দারুচিনি গুঁড়ো গরম পানিতে দিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যায়। বমি হলে দারুচিনি চিবিয়ে খেলে উপকার পাওয়াউপকার পাওয়া যায়।  মেয়েদের ঋতুস্রাব পরিষ্বার হয় এবং বাচ্চা হওয়ার পর গর্ভাশয় সঙ্কুচিত হয় তখন উপকার পাওয়া যায় । দারুচিনি ব্যাকটেরিয়াজনিত সংক্রমণ হতে রক্ষা করে। কৃমির উপদ্রব দূর করার জন্য সকাল-বিকাল দারুচিনি খেতে হয়। দারুচিনি অনিদ্রা দূর করে।হৃদপিন্ড সবল করে।মূত্র বৃদ্ধি করে,দাতের ব্যথা উপশমসহ বিভিন্ন রোগে উপকারী।

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।