সিগারেট ছাড়লে  মুখের ‘দুর্গন্ধ’ আপনাকে ছাড়বে 

অনলাইন ইওর হেল্‌থ ডেস্কঃ মিষ্টি মুখ আর সুন্দর হাসি থাকলেই প্রিয় হওয়া সম্ভব নয়। অনেকক্ষেত্রে শুধুমাত্র মুখের দুর্গন্ধের কারণে কমে যেতে পারে আপনার জনপ্রিয়তা। অনেকেরই মুখে দুর্গন্ধ হয়ে থাকে। তবে এই দুর্গন্ধ বেশিরভাগই শারিরিক নানা সমস্যার কারণে হয় তাই মুখে দুর্গন্ধ হলে তা অবহেলা না করে স্বাভাবিক কোনো পদ্ধতিতেই দূর  করা যায়। তবে যদি  শারীরিক সমস্যার কারণে মুখে দুর্গন্ধ হয় তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন

কিন্তু কীভাবে বুঝবেন  ?  আপনার  মুখের দুর্গন্ধ যদি অ্যামোনিয়া ধরণের হয় অর্থাৎ কিছুটা প্রসাবের মতো গন্ধ হতে থাকে তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন। কারণ এই ধরণের দুর্গন্ধ প্রমাণ করে আপনার টাইপ ডায়বেটিসের সমস্যা হয়েছে। এই গন্ধের মূলকারণ হচ্ছে ডায়বেটিসের কারণে দেহে ইনসুলিনের অভাব। আপনার নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধে মথবলের মতো দুর্গন্ধ পান তাহলে বুঝে নেবেন আপনার সাইনাসে সমস্যা রয়েছে। নাকে গলায় মিউকাস জমে থাকার কারনে এটা হচ্ছে  । বাথরুমের মতো গন্ধ পেলে বুঝে নেবেন আপনার মাড়িতে ইনফেকশন হয়েছে। যদি টক দুধের মতো টক টক ধরণের গন্ধ পান আপনার নিঃশ্বাসে আপনার খাবারে প্রোটিনের মাত্রাঅতিরিক্ত বেশি হয়েছে। এর কারণ হচ্ছে কিটোনের ভাঙন। যদি আপনার নিঃশ্বাসে পচে যাওয়া মাংসের মতো দুর্গন্ধ পান তাহলে বুঝে নেবেন আপনার টনসিলের সমস্যা হয়েছে। টনসিলের কারণে সালফার উৎপন্নকারী ব্যাকটেরিয়া অধিক জন্ম নিচ্ছে যার কারণেই নিঃশ্বাসেএই ধরণের দুর্গন্ধের সৃষ্টি হচ্ছে। আপনার নিঃশ্বাসে দিনের প্রত্যেকটা সময় সকালে ঘুম থেকে উঠার পর যেমন গন্ধ থাকে যদি  তেমন গন্ধ পান তাহলে আপনারজেরোস্টোমিয়াঅর্থাৎ মুখ শুকিয়ে যাওয়ার সমস্যা রয়েছে। মুখে ভেতরের স্যালিভাশুকিয়ে গেলে ব্যাকটেরিয়া উৎপন্ন হতে থাকে যা এইধরনের দুর্গন্ধের সৃষ্টি করে। যদি আপনার নিঃশ্বাসে মাছের মতো দুর্গন্ধ হয় তাহলে বুঝে নেবেন আপনার কিডনি সমস্যা হয়েছে।কিডনিতে সমস্যা হলে এবং কিডনি সঠিকভাবে কাজ না করলে নাইট্রোজেন উৎপন্ন হয় যা এইধরনের দুর্গন্ধেরজন্য দায়ী

মুখে দুর্গন্ধ কেন হয়?  ঠিকমত দাঁত পরিষ্কার না করলে। দাঁতের ফাকে খাবার জমে থাকলে। অনেক্ষণ না খেয়ে থাকলে। মুখ শুষ্ক থাকলে। সকালে ঘুম থেকে উঠার পর দুর্গন্ধ হয়। পানি কম  পান করলে। সিগারেট, অ্যালকোবল পান করলে। পেঁয়াজ, রসুন, ডিম এ ধরণের খাবার খেলেও দুর্গন্ধ হয়।

দুর্গন্ধ তারাতে যা করতে হবেঃ  নিয়মিত ব্রাশ , ব্রাশ করার সময় দাতের সব জায়গা ঠিকমত পরিষ্কার বয়েছে কিনা খেয়াল করবেন,  সকালে উঠে তো ব্রাশ করবেন’ই, রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগেও অবশ্যই ব্রাশ করবেন,  ব্রাশ করার সময় জিববা পরিষ্কার করবেন, জিববার উপর ময়লা জমলেও গন্ধ হতে পারে। ব্রাশ দিয়ে হাল্কা করে জিববা ঘষে ময়লা তুলে ফেলুন। এরপর পানি দিয়ে কুলকুচা করবেন। খাওয়ার পর ডেন্টাল ফ্লস দিয়ে দাতের মাঝে জমে থাকা খাবার পরিষ্কার করার অভ্যাস গড়ে তুলুন। টুথপিক ব্যবহার করলে দাঁত ধীরে ধীরে ফাঁকা বয়ে যাবে। পেপে, স্ট্রবেরী, কমলালেবু, বাতাবি লেবু,  খান।

 

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।