অনলাইন ইওর হেল্‌থ ডেস্কঃ আনারস একটি সুমিষ্ট এবং পুষ্টিকর ফল। মার্চের মাঝামাঝি থেকে জুলাই-আগস্ট পর্যন্ত আমাদের দেশে খুবই সহজলভ্য এই ফল। সবার হাতের নাগালে বাড়ির পাশের রাস্তাতেই পাওয়া যায় এই ফল। আমাদের দেশে সাধারণত পাকা আনারস খাওয়া হয়। তবে কেউ কেউ কাঁচা আনারসের চাটনিও তৈরি করে থাকেন। আনারস থেকে তৈরি করা হয় জ্যাম, জেলি ও জুস। এছাড়া বিভিন্ন ধরনের রান্নায় ও সালাদেও আনারস ব্যবহার করা হয়।  আনারস মিষ্টি ও রসালো, তাই স্বাদের ক্ষেত্রে এর কোনো তুলনাই চলে না। আপনি চাইলে এটি রান্না করে খেতে পারেন। অথবা জুস, সালসা কিংবা টক দইয়ের সঙ্গে ফ্রুট সালাদ করেও খেতে পারেন। সবকিছুই নির্ভর করবে আপনার রুচির ওপর।

আনারসে রয়েছে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এটি চেহারায় বয়সের ছাপ পড়তে দেয় না, অর্থাৎ আপনাকে তরুণ রাখতে সাহায্য করে। ক্যান্সার ও হূদযন্ত্রের নানা রোগ প্রতিরোধেও সাহায্য করে এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। আমাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় হয়তো অনেক অস্বাস্থ্যকর খাবার থাকে, যেমন-জাঙ্কফুড, ড্রিংকস ইত্যাদি। ওইসব খাবারের ক্ষতিও অনেকটা পুষিয়ে দিতে পারে আনারস।

 আনারসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি। আমাদের শরীরের নিয়ন্ত্রণ ঠিক রাখতে ভিটামিন সির গুরুত্ব অনেক। জিহ্বা, তালু, দাঁত, মাড়ির যেকোনো অসুখের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে ভিটামিন-সি। প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় এক কাপ পরিমাণ আনারস আপনার শরীরে ভিটামিন সি’র চাহিদা পূরণ করবে। ওজন কমাতে আনারসের জুড়ি নেই।  আনারস কিভাবে ওজন কমাবে! আনারসে ক্যালরির পরিমাণ খুবই কম, আর রয়েছে প্রচুর আঁশ। তাই ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রতিদিন সকালে কিংবা দুপুরে আনারস খেয়ে নিন। তবে একটা কথা মনে রাখবেন, আনারস তাজা খেলেই বেশি পুষ্টি পাওয়া যায়। রান্না করলে এর গুণাগুণ অনেকটা কমে যায়। আনারসে রয়েছে ব্রোমেলিন নামে এক ধরনের উপাদান, যা আমাদের হজমশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। তাছাড়া বদহজমের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে খেতে পারেন আনারস।

১০০ গ্রাম আনারসে পাওয়া যায় ৪৮ ক্যালরি। এতে কার্বোহাইড্রেট আছে ১২.৬৩ গ্রাম, ফ্যাট ০.১২ গ্রাম, প্রোটিন ০.৫৪ গ্রাম। আনারসে ভিটামিন এর মধ্যে আছে বি, সি এবং মিনারেল এর মধ্যে আছে ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, ফসফরাস, পটাশিয়াম ও জিঙ্ক। পেট ফাপলে আনারসের কয়েক টুকরো লবন ও গোলমরিচ মাখিয়ে খান। আনারসে আছে “ব্রোমিলেইন” নামক এনজাইম যা প্রোটিন ভেঙ্গে পরিপাকে সহয়তা করে। গবেষনায় দেখা গেছে নিয়মিত আনারস খেলে বাত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না।

 

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।