কৃষিবিদ ফরহাদ আহাম্মেদ: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসেবে প্রতিবছর বিশ্বে বিকল্প শিশু খাদ্য (গুঁড়া দুধ) খেয়ে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে প্রায় ২০ লাখ শিশুর করুণ মৃত্যু হয়। স্বাস্থ্য বিশেজ্ঞদের মতে গুঁড়া দুধ স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। গুঁড়া দুধে শিশুর জন্য অতি প্রয়োজনীয় জীবানণু ধ্বংসকারী ল্যাকটোফেরিন,লাইসোজাইম,ইমিউনিগ্লোবিউলস থাকে না। কিন্ত মায়ের দুধে আছে এই অতি প্রয়োজ নীয় জীবানণু ধ্বংসকারী ল্যাকটোফেরিন,লাইসোজাইম,ইমিউনিগ্লোবিউলস। এমনকি গরুর দুধেও  রয়েছে জীবানণু ধ্বংসকারী এ উপাদানগুলো। যা সরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

গুড়ো দুধ খেলে শিশুদের মারাত্মক জটিল রোগ হয়। কারণ গুঁড়া দুধে ক্ষতিকর মেলামাইন ও তেজস্ক্রিয়া পদার্থ থাকে আর মায়ের দুধে থাকে মস্তিষ্ক ও স্নায়ুতন্ত্র গঠনকারী শর্করা। মায়ের দুধ ও গরুর দুধে মানবদেহের প্রয়োজনীয় কেজিন ও ল্যাক্টোজ থাকে যা অন্য কোন খাদ্যে থাকে না।ল্যাক্টোজ ভেঙ্গে গ্লুকোজ ও গ্যালাকটোজ হয়। শিশুর জন্ম থেকে দেড় বছর বয়সের মধ্যে মস্তিষ্কের শতকরা ৯০ ভাগ বৃদ্ধির জন্য একমাত্র গ্যালাকটোজেরই প্রয়োজন। এছাড়াও অত্যাবশ্যকীয় এমন কিছু এমাইনো এসিড থাকে যা অদিকাংশ গুঁড়া দুধে থাকে না।ইংল্যান্ডের স্বাস্থ্য ও সামাজিক নিরাপত্তা বিভাগের বিশেষজ্ঞরা বলেছেন-রাসায়নিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে যে গুঁড়া দুধ প্রস্তুত করা হয় তাতে অনেক উপাদান নষ্ট হয়ে যায়। ফলে শিশুদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে বাধাগ্রস্থ হয়।

বর্তমানে দুধে প্রাপ্ত মেলামাইন বিষাক্ত পদার্থ। মেলামাইন তৈজষপত্র তৈরির একটি উপাদান। যা বিষাক্ত ইউরিয়া সার থেকে অ্যামোনিয়া জাতীয় উপাদান হিসেবে সংগ্রহ করা হয়। দুধে আমিষের পরিমাণ বৃদ্ধির জন্য কিংবা নষ্ট হওয়া আমিষের ঘাটতি পূরণের জন্য এই কৃত্রিম আমিষ (মেলামাইন) মেশানো হয়।

রিপোর্টঃ সীমা আক্তার মেঘলা

সহকারী ব্যবস্থাপনা সম্পাদক

অনলাইন ইওর হেল্‌থ

 

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।