কৃষিবিদ ফরহাদ আহাম্মেদ:  ডাব নিয়মিত খেলে কিডনি রোগ হয় না। আবার কিডনি রোগ হলে ডাবের পানি পান করা সম্পূর্ণ নিষেধ। কারণ কিডনি অকার্য হলে শরীরের অতিরিক্ত পটাশিয়াম দেহ থেকে বের হয় না। ফলে ডাবের পানির পটাশিয়াম ও দেহের পটাশিয়াম একত্রে কিডনি ও হৃদপিন্ড দুটোই অকার্যকর করে। এ অবস্থায় রোগীর মৃত্যু অনিবার্য। তাই যাদের দেহে প্রচুর পটাশিয়াম আছে এবং বের হয় না তাদের ডাবের পানি পান করা ঠিক না। ডাবের পানি রোগীকে পান করানোর আগে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া উচিত। দেহে ক্যালশিয়াম ওপটাশিয়ামের অভাব হলে এবং বিভিন্ন অসুখ-বিসুখ হলে ডাক্তার ডাবের পানি পান করার পরামর্শ দেন।ডায়রিয়া বা কলেরা রোগীদের ঘণঘন পাতলা পায়খানা ও বমি দেহে প্রচুর পানি ও খনিজ পদার্থের ঘাটতি দেখা দেয়। ডাবের পানি এই ঘাটতি অনেকাংশেই পূরণ করতে পারে। নিয়মিত ডাবের পানি পান করলে কৌষ্ঠকাঠিন্য এবং কিডনি সংক্রান্ত রোগ প্রতিরোধ হয়। প্রস্রাবের  বিভিন্ন সমস্যায় ডাবের পানি পানে উপকার পাওয়া যায়। মুখে জলবসন্তের দাগসহ বিভিন্ন ছোট ছোট দাগের জন্য সকাল বেলা ডাবের পানি দিলে দাগ মুছে এবং মুখের লবণ্যতা ও উজ্জ্বলতা বাড়ে।গ্লুকোজ স্যালাইন হিসেবেও ডাবের পানি ব্যবহৃত হয়।

Adrenals Kidneysপ্রতি ১০০ গ্রাম ডাবের পানিতে জলীয় অংশ ৯৫ গ্রাম,মোট খনিজ পদার্থ ০.৩ গ্রাম,আমিষ ২.৩ গ্রাম,শর্করা ২.৪ গ্রাম,চর্বি ০.১ গ্রাম,ক্যালসিয়াম ১৫ মিলিগ্রাম,ফসফরাস ০.০১ মিলিগ্রাম,আয়রণ০.১ মিলিগ্রাম,ক্যারোটিন নেই,ভিটামিন বি ১-০.১১ মিলিগ্রাম,ভিটামিন বি২ ০.০২ মিলিগ্রাম ,ভিটামিন সি ৫ মিলিগ্রাম ও খাদ্য শক্তি ২৩ কিলোক্যালোরি।ডাবের পানি স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী।

কৃষিবিদ ফরহাদ আহাম্মেদ

কৃষি প্রাবন্ধিক ও কলেজ শিক্ষক

সহকারী অধ্যাপক, কৃষি শিক্ষা

শহীদ জিয়া মহিলা কলেজ, ভূঞাপুর, টাঙ্গাই

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।