অনলাইন ইওর হেল্‌থ ডেস্কঃ হৃদরোগ চিকিৎসার বাংলাদেশের   সর্বোচ্চ প্রতিষ্ঠান জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সব কটি ক্যাথেটারাইজেশন ল্যাবরেটরি নষ্ট হয়ে আছে। গুরুত্বপূর্ণ জরুরি সেবা পাচ্ছেন না রোগীরা। খুব শিগরির ল্যাবগুলো চালু হবে না বলে জানিয়েছেন জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের পরিচালক এস টি এম আবু আজম।  তিনি জানিয়েছেন নতুন ক্যাথেটারাইজেশন ল্যাবরেটরি (ক্যাথ ল্যাব) চালু করতে কমপক্ষে দুই মাস সময় লাগবে। এক মাস আগে তিনি পরিচালকের দায়িত্ব পেয়েছেন। সমস্যার গুরুত্ব উপলব্ধি করে দ্রুত সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

হৃদরোগ বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন হৃদ্যন্ত্রের মাংসপেশি, ভালভ (কপাটিকা), ধমনির পরিস্থিতি জানতে এবং হৃদ্যন্ত্রে রক্তের চাপ বুঝতে রোগীকে ক্যাথ ল্যাবে পরীক্ষা করে দেখা হয়। ত্রুটি ধরা পড়লে প্রয়োজনমতো রক্তনালিতে স্টেন্ট (রিং) পরানো, পেসমেকার বসানো, সংকুচিত ভালভকে ফোলানোসহ অস্ত্রোপচার করা হয়। ক্যাথ ল্যাবে হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ, ফিজিওলজিস্ট, নার্স ও রেডিওগ্রাফার একসঙ্গে কাজ করেন।

cath-labপ্রতিষ্ঠানের একাধিক চিকিৎসক জানিয়েছেন, প্রতিষ্ঠানে ক্যাথ ল্যাব আছে পাঁচটি। সব কটি ক্যাথ ল্যাব চালু থাকলে দিনে কমপক্ষে ৭৫ জন রোগীর পরীক্ষা করা সম্ভব। গত পাঁচ বছরে একটির পর একটি ক্যাথ ল্যাব নষ্ট হতে থাকে। নষ্ট হওয়ার পর এগুলো আর চালু করা হয়নি। নতুন যন্ত্র কেনাও হয়নি। প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগহীনতার পাশাপাশি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বিষয়টিকে গুরুত্ব না দেওয়ায় রোগীর সেবা পাওয়া বর্তমানে শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, যাঁদের পেসমেকার বসাতে হবে, তাঁদের জন্য একটি ক্যাথ ল্যাব নির্দিষ্ট ছিল। বছর দেড়েক আগে সেটি নষ্ট হয়ে গেছে। ২০১০ সালে স্থাপিত এই ল্যাবের জন্য যে কটি তাপনিয়ন্ত্রণ যন্ত্র থাকার কথা ছিল, তা শেষ পর্যন্ত দেওয়া হয়নি। দুই, তিন ও চার নম্বর ক্যাথ ল্যাব পাঁচ বছর আগেই ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। পাঁচ নম্বরটি অপেক্ষাকৃত নতুন। সেটি ১৫ দিন আগে নষ্ট হয়ে যায়।

ব্যবহারের অনুপযোগী হলেও চার নম্বর ক্যাথ ল্যাবটি মাঝে মাঝে কয়েকজন চিকিৎসক ব্যবহার করেন। দায়িত্বশীল সূত্র বলছে, যন্ত্রটি চালু করলে বিপজ্জনক রশ্মি ছড়ায়। রোগীদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে চিকিৎসকদের অনেকেই ওই ক্যাথ ল্যাব ব্যবহারে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। তবে গতকাল এই ক্যাথ ল্যাবে ৭০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধের হৃদ্যন্ত্র পরীক্ষা করা হয়েছে।

সুত্রঃ প্রথম আলো

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।