অনলাইন ইওর হেল্‌থ ডেস্কঃ টাইফয়েড একটি সংক্রামক রোগ। শিশু বৃদ্ধ সবারই এই রোগ হতে পারে। বিশেষ ধরণের জীবাণুর মধ্যে এই রোগ ছড়ায়।

 টাইফয়েড জ্বর কি:  টাইফয়েড জ্বর স্যালমোনেলা জীবাণু দিয়ে হয়ে থাকে। সাধারণত দূষিত খাবার এবং পানির মাধ্যমে এই রোগের জীবাণু ছড়ায়। আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসলেও এ রোগ হতে পারে। এই রোগের কারণে তীব্র জ্বর, মাথা ব্যথা, পেট ব্যথা, কোষ্ঠকাঠিন্য অথবা ডায়রিয়া হয়।

 টাইফয়েড জ্বর হয়েছে কি করে বুঝবেন:  টাইফয়েডে আক্রান্ত শিশুরা হঠাৎ করেই অসুস্থ হয়ে পড়ে। তবে এর লক্ষণ ও উপসর্গগুলো সাধারাণত রোগে আক্রান্ত হবার এক থেকে তিন সপ্তাহ পর দেখা দেয়।

 সাধারণত: টাইফয়েড জ্বরের প্রাথমিক লক্ষণ গুলো হলো:  

  • ১০৩-১০৪ ফারেনহাইট (৩৯.৪ অথবা ৪০ সে.) জ্বর

  • মাথা ব্যথা

  • দুর্বল এবং অবসাদবোধ করা

  • গলা ব্যথা

  • পেট ব্যথা

  • ডায়রিয়া অথব কোষ্ঠকাঠিন্য

  • চামড়ায় লালচে দানা বা র‌্যাশ

 এছাড়া ক্রমে অন্যান্য যে লক্ষণ গুলো সাধারণত দেখা দেয় সেগুলো হলো: 

  • তীব্র জ্বর

  • মারাত্মক ডায়রিয়া (হলুদ ও পাতলা ডালের মত) অথবা তীব্র কোষ্ঠকাঠিন্য

  • শরীরের ওজন দ্রুত হ্রাস পাওয়া

  • পেট ফোলা/ফাঁপা

  • রোগের মারাত্মক অবস্থায় রুগী বিকারগ্রস্থ হয় ও প্রলাপ (Delirious) বকে

 কখন ডাক্তার দেখাবেন 

  • টাইফয়েড জ্বর হয়েছে সন্দেহ হলেই ডাক্তারের কাছে যেতে হবে

  • এছাড়া উপরোক্ত লক্ষণ দেখা দেয়া মাত্র ডাক্তারের কাছে যেতে হবে

 কোথায় চিকিৎসা করাবেন 

  • উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্র

  • উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

  • জেলা সদর হাসপাতাল

  • বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়

  • বেসরকারী হাসপাতাল

  • এনজিও পরিচালিত স্বাস্থ্য কেন্দ্র

 কি ধরণের পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন হতে পারে 

  • রোগের ইতিহাস জানা

  • রক্ত পরীক্ষা

  • প্রস্রাব-পায়খানা ও অস্থিমজ্জা (Bone Marrow) পরীক্ষা

 কি ধরণের চিকিৎসা আছে 

  • এ্যান্টিবায়োটিক সেবন

  • পানিশূন্যতা দেখা দিলে শিরার মাধ্যমে তরল খাবার গ্রহণ করতে হবে

  • উচ্চ ক্যালোরি সম্পন্ন সুষম খাবার গ্রহণ

 পথ্য 

  • পর্যাপ্ত তরল খাবার খেতে হবে

  • স্বাস্থ্যকর ও সুষম খাবার খেতে হবে

 টাইফয়েড জ্বর কিভাবে প্রতিরোধ করা যায় 

  • ভালোভাবে হাত ধোয়া

  • নিরাপদ ও বিশুদ্ধ পানি পান

  • স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা ব্যবহার

  • খাবার তৈরি এবং খাবার গ্রহণের পূর্বে এবং পায়খানা ব্যবহারের পর সাবান/ছাই দিয়ে হাত ধোয়া

  • কাঁচা বা অপরিষ্কার শাক-সবজি ও ফলমূল গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকা

  • খাবার গরম করে খাওয়া

  • ঘরের জিনিসপত্র নিয়মিত পরিষ্কার করা

  • টাইফয়েডে আক্রান্ত ব্যক্তি অন্যের জন্য খাবার তৈরি থেকে বিরত থাকা

  • আক্রান্ত ব্যক্তির ব্যক্তিগত ব্যবহার্য দ্রব্যাদি আলাদা করে রাখা

সচরাচর জিজ্ঞাসা

প্রশ্ন. ১. টাইফয়েড জ্বর কেন হয় ? 

উত্তর. সালমোনেলা টাইফি ব্যকটেরিয়া (Salmonella typhi Bacteria) নামক বিশেষ এক ধরণের জীবাণু দ্ধারা সংক্রমণের মাধ্যমে টাইফয়েড হয়।

প্রশ্ন. ২. কাদের টাইফয়েড জ্বর হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে ? 

উত্তর. যাদের টাইফয়েড জ্বর হবার সম্ভাবনা বেশি রয়েছে তারা হলেন-

  • দূষিত পানি পান করলে বা দূষিত খাবার খেলে

  • যে সমস্ত জায়গায় টাইফয়েড জ্বর ব্যাপক আকারে দেখা দেয় সে সমস্ত এলাকায় থাকা ও ভ্রমণ করলে

  • যারা হাসপাতালে সালমোনেলা টাইফি ব্যাকটেরিয়া নিয়ে কাজ করেন (Clinical Microbiologist)

  • টাইফয়েডে আক্রান্ত ব্যক্তি বা সাম্প্রতিক কালে যারা আক্রান্ত হয়েছে তাদের সংস্পর্শে আসা বা তাদের হাতে তৈরী খাবার খেলে

  • এইচআইভি বা এইডসের চিকিৎসার কারণে যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দূর্বল হয়ে গেছে

 প্রশ্ন. ৩. টাইফয়েড জ্বর হলে কি ধরণের জটিলতা দেখা দিতে পারে ? 

উত্তর. টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হলে নিচের জটিলতাগুলো দেখা দিতে পারে:

  • অন্ত্রে ছিদ্র বা রক্তক্ষরণ

  • হৃৎপিন্ডের মাংসপেশীতে প্রদাহ

  • অগ্ন্যাশয়ে প্রদাহ (Panereatitis)

  • কিডনিতে (Kidney) সংক্রমণ

  • মেরুদন্ডে সংক্রমণ

  • শরীরের ঝিল্লিতে (Membrane) সংক্রমণ ও প্রদাহ এবং মাথায় ও মেরুদন্ডে তরল/রক্ত (Fluid) জমাট বাঁধা

  • বিভিন্ন ধরণের মানসিক সমস্যা যেমন- বিকারগ্রস্থ (Delirium) , দৃষ্টিভ্রম (Hallucination), মস্তিষ্ক বিকৃতি (Paranoid) দেখা দেয়।

সুত্রঃ www.mayoclinic.com

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।