অনলাইন ইওর হেল্‌থ ডেস্কঃ প্রসবজনিত ফিস্টুলা হলো জন্ম নালীর ( birth Canal)-এ একটি ছিদ্র (hole)। মাতৃকালীন মৃত্যুর (Maternal Mortality) একটি অন্যতম কারণ হলো প্রসবজনিত ফিস্টুলা। যেসব মহিলাদের এই রোগ হয় তারা নানা ধরণের সমস্যার সম্মুখীন হয় যেমন: মল-মূত্রের বেগ ধারণে অক্ষমতা, লজ্জা, সমাজ থেকে বিতাড়িত হওয়া এবং বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যা।

 প্রসবজনিত ফিস্টুলা কি ? যোনিপথ, মূত্রাশয় এবং মলদ্বারের মাঝখানে অস্বাভাবিক ভাবে উন্মুক্ত হলে একে প্রসবজনিত ফিস্টুলা বলে। এর ফলে কোনরকম নিয়ন্ত্রণ ছাড়াই প্রস্রাব-পায়খানা বের হয়ে যায়।

 লক্ষণ ও উপসর্গ :  ফিস্টুলার আকার এবং এটি হওয়ার স্থানের উপর নির্ভর করে এর লক্ষণ ও উপসর্গ গুলো সাধারণত: ভিন্ন হয়। যেমন:

  • প্রস্রাব, পায়খানা ও পুঁজ যোনিপথ দিয়ে বের হয়ে যাওয়া

  • দুর্গন্ধযুক্ত সাদা স্রাব হওয়া

  • যোনিপথের এবং প্রস্রাবের রাস্তায়  (Urinary tract)-এ বার বার সংক্রমণ হওয়া

  • যোনিমুখে, যোনিপথে এবং মলদ্বারে জ্বালাপোড়া বা ব্যথা হওয়া

  • শারিরীক সম্পর্ক স্থাপনের সময় ব্যথা অনুভব করা

  • ঘন ঘন পায়খানা হওয়া এবং পায়খানা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হওয়া

 কখন ডাক্তার দেখাবেন 

উপরোক্ত লক্ষণ ও উপসর্গ গুলো দেখা দেয়ার সাথে সাথে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

 কোথায় চিকিৎসা করাবেন 

  • সরকারি হাসপাতালসমূহ  

  • বেসরকারি হাসপাতালসমূহ

কি ধরণের পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন হতে পারে 

  • গর্ভধারণের অথবা সন্তান জন্মদানের ইতিহাস জানা

  • শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা

  • যোনিপথ, মলদ্বার ও পায়ুপথ পরীক্ষা

  • মলদ্বার এবং পায়ুপথের এনোরেক্টাল আল্ট্রাসাউন্ড ( Anorectal UltraSound_)

  • কনট্রাস্ট টেস্ট (Contrast Test) যেমন: ভ্যাজাইনোগ্রাম (Vaginogram), বারিয়াম (Barium) পরীক্ষা

  • পেটের এবং শ্রেণীর (Pelvis) কম্পিউটারাইজড টমোগ্রাফী (Computerized Tomography)

  • শরীরের নরম কোষের ম্যাগনেটিক রিজোন্যান্স ইমেজিং (Magnetic Resonance Imaging)

 কি ধরণের চিকিৎসা আছে 

  • সার্জারি বা অপারেশন

  • অপারেশনের আগে কোন সংক্রমণ হলে এ্যান্টিবায়োটিক সেবন

  • ডাক্তারের পরামর্শ ও নির্দেশনানুযায়ী ঔষধ সেবন ও বিধি-নিষেধ মেনে চলা

 জীবন যাপন পদ্ধতি

  • প্রস্রাব-পায়খানার পর ভালোমত গরম পানি সাবান দিয়ে পায়ুপথ পরিষ্কার করা। ধোয়ার পর পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুছতে হবে।

  • জ্বালাপোড়া হতে পারে এমন প্রসাধন/সাবান ব্যবহার না করা

  • ঢিলেঢালা পোশাক এবং সুতির অর্ন্তবাস পরা।

 কিভাবে প্রসবজনিত ফিস্টুলা প্রতিরোধ করা যায়

  • অল্প বয়সে গর্ভধারণ না করা

  • প্রস্রবের সময় প্রশিক্ষিত ধাত্রী/চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে থাকা

  • বাসায় প্রসব না করানো

  • প্রসবকাল দীর্ঘ না করা

  • জরুরী প্রসূতি সেবা নেয়

সচরাচর জিজ্ঞাসা

প্রশ্ন. ১. প্রসবজনিত ফিস্টুলা হওয়ার কারণ কি ? 

উত্তর. প্রসবজনিত ফিস্টুলা হওয়ার কারণ হলো  প্রসবকাল দীর্ঘ হওয়া। প্রসবের সময় দীর্ঘকাল শিশুর মাথা প্রসবপথে আটকে থাকলে ফিস্টুলা তৈরী হয়।

 প্রশ্ন. ২. কাদের প্রসবজনিত ফিস্টুলা হওয়ার ঝুঁকি বেশি ? 

উত্তর. যাদের প্রসবজনিত ফিস্টুলা হওয়ার ঝুঁকি বেশি তারা হলেন:

  • অল্প ও বেশী বয়সে মা হলে

  • কিশোরী মা ও শারীরিক অপুষ্টির শিকার মা

 প্রশ্ন.৩. প্রসবজনিত ফিস্টুলা কয় ধরণের হয়ে থাকে?

উত্তর. প্রসবজনিত ফিস্টুলা কয়েক ধরণের হয়ে থাকে। যেমন:

  • ভেসিকো -ভ্যাজাইনাল ফিস্টুলা (Vesico-Vaginal fistula)-এটি মূত্রাশয় এবং যোনিপথের মধ্যে সংঘটিত হয়

  • ইউরেথ্রো-ভ্যাজাইনাল ফিস্টুলা (Urethro-Vaginal fistula)-মূত্রনালী এবং যোনিপথের মধ্যে হয়ে থাকে

  • রেক্টো-ভ্যাজাইনাল ফিস্টুলা (Vaginal fistula) মলদ্বার এবং যোনিপথের মধ্যে হয়ে থাকে

 প্রশ্ন .৪. প্রসবজনিত ফিস্টুলার কারণে কি ধরণের জটিলতা দেখা দিতে পারে ? 

উত্তর. প্রসবজনিত ফিস্টুলার ফলে নিচের জটিলতাগুলো দেখা দিতে পারে:

  • মল-মূত্র বেগ ধারণে অক্ষমতা (Incontinence)

  • শারীরিক পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে সমস্যা

  • যোনিপথে এবং পায়ুপথে প্রদাহ /সংক্রমণের ফলে ফোঁড়া হওয়া

  • সামাজিক জটিলতা

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।