ডাঃ নাসির উদ্দিন মাহমুদ:  চোখের নীচে কালি পড়া একটি বিরক্তিকর সমস্যা । এ অবস্থায় যে কেউ উদ্বিগ্ন না হয়ে পারে না । কারণ রোগে শোকে দুর্বল ব্যক্তিদের চোখের কোলে কালি জমতে দেখা যায় এবং দেখতেও কুৎসিত লাগে । তখন মানুষের সামনে যাওয়াটাই একটা অস্বস্তিকর ব্যাপার হয়ে দাড়ায় । ক্লান্তি , অনিদ্রা , রক্তশূন্যতা , মানসিক দুশ্চিন্তা , বার্ধক্য , অতিরিক্ত রোদে চলাফেরা ও কসমেটিকসের অপব্যবহারের জন্য এমনটি হতে পারে। তাছাড়া ঘন ঘন নাক বন্ধ হয়ে থাকা , অতিরিক্ত শারীরিক বা মানসিক চাপ , ধূমপান , অ্যালার্জিজনিত কারণে চোখে কচলানি বা চুলকানি হলে ও মেয়েদের গর্ভাবস্থা বা পিরিয়ডের সময় চোখের কোলে কালি জমতে পারে । চোখের চতুঃপার্শ্বের চামড়া অত্যন্ত পাতলা , নমনীয় ও সেখানে কোন তেল গ্রন্থি থাকে না । তাই সহজেই তা শুকিয়ে খসখসে হয়ে যায় ও কালচে লাল বা কাল বর্ণ ধারণ করতে পারে । চোখের কালি পড়ার কারণগুলো শুধরানোর পাশাপাশি কিছু ব্যবস্থা নেওয়া গেলে কালি নিরাময় অনেকটা আশা করা যায় । যেমন –

পর্যাপ্ত আরামদায়ক ঘুম (দৈনিক ৭-৮ ঘণ্টা) চোখের কালি দূর করার প্রথম ও প্রধান শর্ত । ঘুমোতে যাওয়ার আগে আলসেমি বাদ দিয়ে মেক-আপ পরিষ্কার করা দরকার । অতঃপর রেটিনয়েড ক্রিম মেখে শুতে যাওয়া । যেমন , Retin-A , Retinol , Neutrogen ক্রিম ইত্যাদি । এ ক্রিম প্রত্যহ চোখের চতুঃপার্শ্বের চামড়ায় ব্যবহারে চামড়া হয় উজ্জ্বল , মসৃণ ও টানটান এবং চামড়ায় কুঞ্চন হয় না , কোন দাগ থাকলে তা চলে যায় ।

প্রচুর পানি পান (৮-১০ গ্লাস দিনে) করা দরকার ।

সকালে ঘুম থেকে উঠে ও দিনে আরও কয়েকবার চোখে ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা চোখের কোলে কালি ও ফোলা কমাতে সাহায্য করে । নরম কাপড়ে করে বরফের কিউব চোখের নীচে চেপে ধরলেও (compression) বেশ উপকার হয় ।

শসা বা আলুর স্লাইস চোখের কালি ও ফোলা কমাতে সাহায্য করে । চোখের উপর হিমায়িত শসার টুকরার ব্যবহার বেশ পুরোনো , কার্যকর ও পৃথিবীব্যাপী সমাদৃত

কটন বল ঠাণ্ডা শসা বা আলুর রসে পরিমাণমত ভিজিয়ে চোখের উপর লেপটে রাখলে চোখের কোলে কালি ও ফোলা উপশম হয় ।

ব্যবহার করা ঠাণ্ডা টি-ব্যাগ দু’চোখের উপর রেখে ১৫-২০ মিনিট শুয়ে থাকলে বেশ ভাল কাজ দেয় । ফ্রিজে রাখার আগে টি-ব্যাগ পানিতে ভিজিয়ে নিতে হয় । একটা পেঁচানো তোয়ালে দু’চোখের উপরে-নীচে ও দু’কানের সামনে দিয়ে ঘুরিয়ে রাখলে , টি-ব্যাগের পানি কানে ও গলায় পড়তে পারে না ।

প্রখর রোদে চলাফেরার সময় সানগ্লাস পড়া নিরাপদ । সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মি (Ultra Violet Ray) কালি পড়া ছাড়াও চোখের বড় ধরণের ক্ষতি হতে পারে । সানগ্লাস কেনার সময় তা UV রে প্রতিরোধক কিনা এবং হলে তা কত পার্সেণ্ট (%) তা দেখে নেওয়া দরকার । ধূসর রঙের সানগ্লাস পড়া সবচেয়ে ভাল ।রোদে বের হওয়ার সময় সম্ভব হলে সানস্ক্রিন (SUNSCREEN) ব্যবহার করা যেতে পারে । একসাথে সানগ্লাস ও সানস্ক্রিন ব্যবহার করা অধিক নিরাপদ ।অনেকে রোদ থেকে বাঁচার জন্য ছাতা ব্যবহার করেন । তাছাড়া রোদে চলতে হলে টাইট-ফিট পোশাক না পরে ঢিলেঢালা সুতির কাপড় পড়া দরকার ।

এসবের পাশাপাশি পুষ্টিকর খাদ্য যেমন , টাটকা শাকসবজি , ফলমূল , সালাদ , ডিম , দুধ ইত্যাদি খাওয়া উচিত । ধূমপানের অভ্যাস থাকলে তা ছাড়তে হবে , চোখে অ্যালার্জি ও ঘন ঘন নাক বন্ধ থাকলে তার চিকিৎসা করতে হবে ।

“চোখ হল আত্নার জানালা” । কারও চোখের দিকে তাকিয়ে তার অবস্থা   অনেকটা আঁচ করা যায় । তাই শরীর ও মন ভালো রাখার জন্য চোখ সুন্দর ও সুস্থ থাকা দরকার । আর পাণ্ডার মত কালিমাখা চোখ কে-ই বা পছন্দ করে !

ডাঃ নাসির উদ্দিন মাহমুদ

 লালমাটিয়া , ঢাকা

 Emial:  nasiruddin1544@gmail.com

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।