মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসা আনছে এক নতুন প্রজন্মের রকেট৷ ২০১৮ সালে যেটি প্রথম বারের মতো মহাকাশে পাড়ি দেবে৷ নাম ‘স্পেস লঞ্চ সিস্টেম’ বা এসএলএস৷ ওজন প্রায় প্রায় ৭০ মেট্রিক টন৷

এতকাল যা অসম্ভব ছিল তাই সম্ভব করতে যাচ্ছে এটি। এর ধাক্কায় প্রায় ১৩০ মেট্রিক টন মহাকাশে পাঠানো সম্ভব৷ এ রকেট বিপুল শক্তিতে পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ শক্তি কাটিয়ে দ্রুত মহাকাশের গভীরে নিয়ে যেতে পারবে৷ ফলে ২০৩০ সালের মধ্যে মঙ্গলগ্রহে মানুষ পাঠানো সম্ভব হবে বলে বিজ্ঞানীরা আশা করছেন৷

তবে সৌরজগতের আরও গভীরে যেতে শুধু শক্তিশালী রকেট থাকলেই চলবে না, চাই বহুদূর যাবার উপযুক্ত মহাকাশযানও৷ তাই আরেকটি প্রকল্পের আওতায় ‘ওরিয়ন মাল্টিপার্পাস ক্রু ভেহিকেল’নামের যান তৈরির কাজ চলছে৷ যেটি এ বছরের ডিসেম্বর মাসেই পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করা হবে৷

প্রায় তিন বছর আগে এসএলএস রকেটের পরিকল্পনা শুরু হয়ে এর মধ্যে বেশ অগ্রগতি ঘটেছে৷ তবে ২০১৮ সালের নভেম্বরের আগে রকেটটি আকাশে ওড়ার উপযোগী করে তোলা সম্ভব নয় বলে নাসা জানিয়েছে৷

গত ৪০ বছরে নাসা এতো বড় আকারের ‘হেভি লিফট লঞ্চ ভেহিকেল’ তৈরি করেনি৷ এর প্রথম তিনটি সংস্করণ তৈরিতে প্রায় ১,২০০ কোটি ডলার ব্যয় হবে বলে সংস্থাটি অনুমান করছে৷ তবে সরকারি ব্যয় সদ্ব্যবহার নিশ্চিত করার দায়িত্বে থাকা মার্কিন কর্তৃপক্ষ জিএও নাসার এ প্রকল্পের সমালোচনা করেছে৷ তাদের অভিযোগ, নাসার ‘কনস্টেলেশন’ নামের বাতিল হয়ে যাওয়া একটি প্রকল্পের হার্ডওয়্যার নতুন এ প্রকল্পে ব্যবহার করা হচ্ছে৷ তবে এ অভিযোগের জবাব দেবে বলে নাসা জানিয়েছে৷m-r_573x371[1]

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।