গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল বছরের গোড়া থেকেই৷ শেষ পর্যন্ত কথাটা সত্যি বলেই খবর বাতাসে৷ আর খবরটা পাওয়া গেল রনবীর কাপুরেরই এক বন্ধুর কাছ থেকে৷ রনবীর যে ভ্যালেনটাইন্স ডে-র সন্ধেটা নিজের বন্ধুদের সঙ্গে মদ্যপান আর পার্টি করে কাটিয়েছেন, তা তো আগেই জানা গিয়েছিল৷ কিন্তু তার কারণটা যে আসলে ক্যাটরিনার সঙ্গে সম্পর্ক ভাঙা, তা এক প্রকার নিশ্চিতই করলেন রনবীরের এই বন্ধু৷ আর সেই কারণেই সেদিন বন্ধুদের নিজের পার্টিতে মেসেজ করে ডেকে পাঠিয়েছিলেন রনবীর৷ তবে ঘটনাটা যে এই দিকেই এগোচ্ছে, সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ ছিল না পয়লা জানুয়ারির পর থেকে৷ যাওয়ার সময় একসঙ্গে গিয়েও, নিউ ইয়র্ক থেকে ছুটি কাটিয়ে ফেরার সময় দু’জনে আলাদা আলাদাভাবে ফিরেছিলেন৷ কিন্তু এর আগে কখনও এমনটা দেখা যায়নি৷ তা সে স্পেনে ছুটি কাটানোই হোক, কিংবা অমিতাভ বচ্চনের বাড়িতে ‘শিপ অফ থেসিয়াস’-এর স্পেশাল স্ক্রিনিং৷ সব সময়ই দু’জনে একসঙ্গে বেরোতেন৷ কিন্তু ছবিটা বদলে যাওয়াতেই সন্দেহ দেখা দিয়েছিল সকলের মনে৷ তবে এই প্রেম ভেঙে যাওয়াটা যদি একেবারে পাকাপাকি হয়, তাহলে তা যে শুধু রনবীর-ক্যাটরিনাকে প্রভাবিত করবে তাই নয়, তা প্রভাবিত করছে গোটা ইন্ডাস্ট্রিকেই৷ তাই শুধু তারাই নন, কপালে ভাঁজ ইন্ডাস্ট্রির অনেকেরই৷ranbir-kapoor-katrina-kaif

এদিকে বলিউডের এক নম্বর নায়ক আর এক নম্বর নায়িকার মধ্যে এই বিরহ কাণ্ডর মাঝে পরে বলিউডের কোটি টাকার লগ্নি এখন অনিশিচিত ভবিষ্যতের মুখে৷ যারা এই দু’জনকে নিয়ে ছবি বানাচ্ছিলেন, তাদের অনেকেই এখন অথৈ জলে৷ তাদের মধ্যে অবশ্যই প্রথমে আসবে পরিচালক অনুরাগ বসুর নাম৷ এই দু’জনকে নিয়ে তিনি ‘জাগ্গা জাসুস’ নামের ছবিটি তৈরি করেছেন৷ তার শ্যুটিং নিয়ে এখন ঘোর সংকট দেখা দিয়েছে৷ আর ১০০ কোটির এই রোম্যান্টিক কমেডির শ্যুটিং নিয়ে যদি সমস্যা হয়, তাহলে পরিচালক যে সমস্যায় পড়বেন, তা তো বলাই বাহুল্য৷

‘শ্যুটিং যখন শুরু হয়েছিল, রনবীর এবং ক্যাটরিনার মধ্যে সম্পর্ক ছিল৷ কিন্তু এখন তাদের মধ্যে দূরত্ব তৈরি হয়েছে৷ ওঁরা একে অপরের সঙ্গে কথা বলছেন না৷ সত্যি বলতে, দু’জনে নিজের কাজের মধ্যে এমনই অস্বস্তি নিয়ে আসছেন যে, একদিন তো অনুরাগকে আধ ঘণ্টায় শ্যুটিং বন্ধ করে দিতে হলো৷ আর একদিন শ্যুটিংয়ের মাঝে রনবীর ক্যাটরিনার সঙ্গে সময় কাটাবেন বলে তার ভ্যানিটি ভ্যানে গেলেন৷ কিন্তু আধ ঘণ্টা যেতে না যেতেই সেখান থেকে বেরিয়ে এলেন, আর চলেও গেলেন,’ জানিয়েছেন শ্যুটিং ইউনিট-এর সঙ্গে যুক্ত একজন৷

শুধু এই একটি ছবিই নয়, যত দূর জানা যাচ্ছে অন্তত তিনটি এমন ছবির পরিকল্পনা ছিল, যেখানে রনবীর আর ক্যাটরিনার প্রধান চরিত্রে অভিনয় করার কথা হচ্ছিল৷ কিন্তু সেগুলোর প্রযোজকরা এখন আর নাকি সেই সব প্রোজেক্ট নিয়ে এগোতে পারছেন না, কারণ তাদের সম্পর্কের ভাঙন৷ তিনটি ছবির একটির প্রযোজক নাকি করন জোহর৷ কিছুদিন আগে কিরণ রাওয়ের বাড়িতে রনবীর এবং ক্যাটরিনা যান একটি মিটিং-এর উদ্দেশ্যে৷ কিন্তু প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, সেই মিটিং-ও আধ ঘণ্টার বেশি এগোয়নি৷ আন্দাজ করাই যায়, কিরণও নিশ্চয়ই এমনই কোনও ছবির কাজের কথা বলতেই মিটিংয়ে বসেছিলেন দু’জনের সঙ্গে৷ কিন্তু সে প্রোজেক্টও এখন বিশ বাঁও জলে পড়ে যাবে, তাতে আর সন্দেহ কী! তবে ইন্ডাস্ট্রির কেউ-ই এই নিয়ে বিশেষ কথা বলতে রাজি নন৷ যে কোনও কাউকে এই নিয়ে প্রশ্ন করা হলে, সকলেরই মুখে এক রা- ‘ওদের ব্যক্তিগত জীবন’!

কী হয়েছিল দু’জনের মধ্যে?

রনবীর-ক্যাটরিনার ঘনিষ্ঠ মহল দু’টি তত্ত্ব খাড়া করছেন এই প্রেম ভাঙার কারণ হিসেবে৷

প্রাক্তনদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা: ক্যাটরিনা নাকি খুবই বিরক্ত ছিলেন দীপিকার সঙ্গে রনবীরের কাজ করা নিয়ে৷ রনবীর একের পর এক ছবিতে সই করেছেন, যেখানে তার বিপরীতে অভিনয় করছেন দীপিকা পাড়ুকোন৷ কিন্তু পাশাপাশি সলমন খানের সঙ্গে ক্যাটরিনার কাজ করার বিষয়ে নাকি আপত্তি ছিল রনবীরের৷ দু’জনেই দু’জনের কথা শুনতেন না৷ তার কারণটাও খুব পরিষ্কার৷ রনবীর-দীপিকা এই মুহূর্তে বলিউডের ‘হটেস্ট’ অন-স্ক্রিন জুটি৷ আর ক্যাটরিনা-সলমন ‘এক থা টাইগার’-এর মতো সুপারহিট ছবি দিয়েছেন ইন্ডাস্ট্রিকে৷ ওদিকে সলমনের সঙ্গে কাজ না করা মানে, ক্যাটরিনার ক্যারিয়ারের জন্য আত্মহত্যা৷ এতে তিনি সলমনের ঘনিষ্ঠ হিরোদেরও চটিয়ে ফেলবেন৷ তারাও আর ক্যাটরিনার সঙ্গে কাজ করবেন কি না, সে নিয়ে সন্দেহ রয়েছে৷ অর্থাৎ শ্যাম রাখি না কূল, এই দোটানায় ক্যাটরিনা যথেষ্ট বিচলিত৷

সম্পর্ককে স্বীকৃতি দেয়া: ক্যাটরিনার ঘনিষ্ঠদের মত এটাই যে, তিনি নাকি চেয়েছিলেন রনবীর তাদের সম্পর্কের কথাটি দুনিয়ার কাছে স্বীকার করে নিন৷ কারণ সম্পর্কের বিষয়ে রনবীরের খুব একটা ‘সুনাম’ নেই বলেই মত অনেকের৷ ক্যাটরিনা নাকি রাজি ছিলেন, তাদের সম্পর্কটা ‘অফিসিয়াল’ভাবে মেনে নিতে৷ শর্ত একটাই: রনবীরকেও সম্পর্ক সম্বন্ধে একটা অফিসিয়াব ঘোষণায় আসতে হবে৷ রনবীর কিন্ত্ত কখনো সেই রাস্তায় হাঁটেননি৷ আর এই বিষয় নিয়েই নাকি নিউ ইয়র্কের ছুটির প্রথম দিন থেকে ঝগড়া৷

যত দিন না অফিসিয়ালি কোনও কিছু ঘটছে, আমি এই নিয়ে কিছু বলতে পারব না৷ আজ হয়তো আমি কোনও একট সম্পর্কে আছি৷ কিন্ত্ত কাল সেটা ভেঙে যেতেই পারে৷ আর লক্ষ্য করেছি, যখনই সম্পর্কের বিষয়ে আমি নিজের একটা সাধারণ মতামত দিয়েছি, মানুষ সেটার ভুল মানে করেছেন৷ তাই আমি আর এই বিষয়ে কোনও কথা বলব না বলেই সিদ্ধান্ত নিয়েছি৷ নিজের জীবন এবং সম্পর্ককে সব সময় আড়াল করে রাখা উচিত৷ না হলে মানুষ ভুল মানে করে ফেলতে পারে- ক্যাটরিনা কাইফ (প্রসঙ্গত বলে রাখা, সম্পর্ক ভাঙাই হোক, কিংবা এর আগে সম্পর্ক যখন ছিল, তখন হোক, কোনও দিনই নিজের প্রেমের ব্যাপারে রনবীর কাপুরের নাম একবারও করেননি ক্যাটরিনা কাইফ) আমি কখনও বলি নি যে আমি কাউকে ডেট করছি৷ এখনও বলছি, আমাকে সিংগল হিসাবেই কনসিডার করুন৷ যদি আপনি আমাকে বিয়ের বিষয়ে জিজ্ঞেস করেন, তাহলে আমি বলব, প্রথমে আমি কাউকে ডেট করি, তারপর বিয়ের ব্যাপারে ভাবব৷ যদি ডেট-ই না করে থাকি, তাহলে বিয়ের প্রসঙ্গ উঠল কোথা থেকে? এই বিষয়ে আর কোনো প্রশ্নই থাকতে পারে না

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।