অন্যরকম এক প্রেমকাব্য রচনা করেছেন নাসিমা ও কবির। পতিতার কন্যা নাসিমা। তার প্রতি সমাজের অন্যরা যখন ঘৃণাভরে তাকায় তখন তার জন্য ভালবাসা উতলে ওঠে কবিরের। এই কবির একজন সমাজকর্র্মী। দুজনের প্রেম সব ভেদাভেদ তুচ্ছ করে চূড়ান্ত রূপ নেয়। বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন তারা। এ খবর দিয়েছে অনলাইন রেডিফ। এতে বলা হয়েছে, কবিরের বাড়ি ভারতের রাজস্থানে। নাসিমার বাড়ি বিহারে। দু’জনের ভাষা ভিন্ন। সংস্কৃতিতেও রয়েছে কিছুটা ভিন্নতা। কবির সমাজকর্মী। নাসিমা পতিতার মেয়ে। সামাজিক এত দূরত্ব থাকা সত্ত্বেও তারা একে অন্যের কাছাকাছি এসেছেন। নাসিমার পুরো নাম নাসিমা খাতুন। অনেক দিন আগের কথা নয়, তিনি ছিলেন ‘পতিতার মেয়ে’ হিসেবে পরিচিত। জন্মের পরই তাকে পরিত্যাগ করে তার মা। এ অবস্থায় তাকে লালন পালন করেন এক নারী, যিনি নিজে একজন যৌনকর্মী। বিহারের মুজাফ্‌ফরপুরের এই পতিতালয় বেশ পরিচিত।

সেখানে নাসিমার সামনে অনেক রকম সুযোগ এসেছিল। তিনি নোংরা পথ বেছে নিতে পারতেন এবং সেটাই স্বাভাবিক পন্থা হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তিনি তা করেন নি। তার দৃঢ় মনোবাসনা ছিল জীবন থেকে নোংরা অতীতকে মুছে ফেলবেন। মাথা উঁচু করে দাঁড়াবেন। তাই নিজে প্রতিষ্ঠা করেন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ‘প্রচাম’। এখানে পতিতালয়ের শিশুকন্যাদের শিক্ষা দেয়া হয়। নাসিমা আরও এক ধাপ এগিয়ে যান। হাতে লেখা ম্যাগাজিন ‘জুগনু’ বের করেন। এতে যৌনকর্মী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে লেখা প্রকাশিত হয়। নাসিমা যে সমাজে বসবাস করেন সেখানে ভালবাসা এক বিস্ময়কর ব্যাপার। এমনই এক বিস্ময়কর ভালবাসা এসে হাজির হয় তার জীবনে।naseem

সেই ভালবাসার নাম রাজস্থানের হংসরাজ কবির। নাসিমা বলেন, কবিরের সঙ্গে আমার সাক্ষাৎ ২০০৩ সালে। তখন আমি পাটনা সফর করছিলাম। সেখানে দলিত শ্রেণীর জাতীয় এক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অংশ নিয়েছিলাম আমি। ওই প্রশিক্ষণের পরে কবির আমাকে বিস্মিত করে বিয়ের প্রস্তাব করে। কবির সমাজকর্মী হলেও আইনজীবী। তিনি কাজ করেন দলিত শ্রেণীর মানুষের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে। নাসিমার সঙ্গে প্রথম পরিচয়ের কথা প্রাণ খুলে বলেন তিনি, প্রশিক্ষণের সময় নাসিমার কণ্ঠ আমার হৃদয় বিদীর্ণ করে। তার চিন্তাধারা ছিল স্পষ্ট।

সে কোন সাধারণ মেয়ে নয়। সৌভাগ্যক্রমে ৮ দিনের কর্মশালা শেষে সে আমাদের গ্রুপ লিডার হয়। আমি সুযোগ পেয়ে যাই তাকে কাছ থেকে দেখার। কিন্তু তার জন্মের ইতিহাস, মায়ের নোংরা জীবনের কারণে সে অনেকটা সঙ্কুচিত ছিল। তাকে আমি প্রস্তাব দিলে সে অস্বীকৃতি জানায়। বলে, এমন সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে একজনকে অন্যজনের ভালভাবে জানা দরকার। ২০০৪ সালে মুম্বই, ২০০৬ সালে দিল্লিতে তাদের ফের সাক্ষাৎ হয়। নিজের জীবন সম্পর্কে নাসিমা লিখেছিলেন ‘সফর’ নামে একটি বই। এতে অন্য ৫ যৌনকর্মীর জীবনাল্লেখ্য বর্ণনা করা হয়েছে। এ বইটি কবিরের পিতা ঘাইসালাকে উপহার দেন নাসিমা। তা পড়ে তিনি পরে ফোন করেন নাসিমাকে। বলেন, তিনি নাসিমাকে পুত্রবধূ বানাতে চান। এরপর ২০১০ সালের ১৪ই জানুয়ারি নাসিমার জন্মদিনে তারা বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন।

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।