রূপ নিয়ে সতর্ক সকলেই৷ সে নারী হোক কিংবা পুরুষ৷ কিন্তু, বয়সের সঙ্গে সেই রূপেই বাধা হয়ে দাঁড়ায় বলিরেখা৷ এতদিন পর্যন্ত সকলেই ভাবতেন কীভাবে কমানো যায় এই সমস্যা৷ বর্তমানে চিকিৎসা বিজ্ঞানের উন্নতি এতটাই হয়েছে যে, বয়সের ছাপ চেহারায় আর একেবারই পড়ে না৷ আর তারই এক অন্যতম উপায় বোটক্স৷ কিন্তু, কী এই বোটক্স? কীভাবে হয় এই চিকিৎসা? কারাই বা করাতে পারেন এটি? সে বিষয়ে আমাদের প্রতিনিধি অন্যতমা দাসকে হালহকিকত জানালেন  জানালেন মুম্বাইয়ের  খ্যাতনামা ডার্মাটোলজিস্ট ডা. অপ্রতিম গোয়েল

ডা. অপ্রতিম গোয়েলডার্মাটোলজি

ডা. অপ্রতিম গোয়েল
ডার্মাটোলজি

কী এই বোটক্স?
বোটক্সের আসল নাম বটুলিনাম টক্সিন৷ বোটক্স মূলত একটি টক্সিন উৎপাদনকারী আমেরিকান কোম্পানি৷ তাই লোকমুখে এই চিকিৎসার নামও বোটক্স হয়ে গিয়েছে৷ এটি একধরনের ইনজেকশন৷ সাধারণত মুখের বলিরেখা কমানোর জন্য ছোট সূঁচের মাধ্যমে এটি দেওয়া হয়ে থাকে৷ মুখের পেশিতে এই ইনজেকশন দিয়ে পেশিকে ঘুম পাড়িয়ে দেওয়া হয়৷ ফলে মুখের ভাঁজ অনেক কম হয়ে যায়৷ ছ’মাস বোটক্সের প্রভাব থাকে৷ এরপর মুখের বলিরেখা আবার আগের মতই ফিরে আসে৷ তাই, প্রতি ছয় মাস অন্তর এই বোটক্স নিতে হয়৷

শরীরের কোন অংশে এটি প্রয়োগ করা যেতে পারে?
সাধারন মুখেই এটি দেওয়া হয়৷ পেশির সঞ্চালনের কারণে যে অংশে বলিরেখা পড়ে, সেখানেই এটি প্রয়োগ করা হয়৷ তাই বলে এই নয় যে শরীরের সব জায়গাতেই এটি ব্যবহার করা যাবে৷ অনেকেরই ভুল ধারণা থাকে যে, ঠোঁটের পাশে বা গালের নিচের অংশে বলিরেখা দেখা গেলে মানেই সেখানে বোটক্স করিয়ে নেওয়া যায়৷ চিকিৎসকেরাই পরীক্ষা করে দেখেন যে, ঠিক কোন অংশে বোটক্সের প্রয়োজন৷ সাধারণত মুখের উপরের অংশেই বোটক্স প্রয়োগ করা হয়৷ অনেক সময় হাতে বা পায়েও বোটক্স দেওয়া হয়৷ এছাড়াও অনেক সময় আন্ডারআর্মে ঘামের জন্যও বোটক্স দেওয়া যেতে পারে৷Botox

এই চিকিৎসায় কোন ঝুঁকি রয়েছে কি?
না, সেই অর্থে ঝুঁকি একেবারেই নেই৷ এটি খুবই সহজ এবং সাধারণ চিকিৎসা পদ্ধতি৷ একবারেই এটি করা হয়ে যায়৷ অন্যান্য চিকিৎসা যেমন লেজার ট্রিটমেন্টের ক্ষেত্রে রোগীকে প্রায় ছ’ থেকে সাতবার চিকিৎসকের কাছে যেতে হয়৷কিন্তু, বোটক্সের ক্ষেত্রে একবারেই কাজ হয়ে যায়৷ রোগী আবার ছ’মাস বাদে চিকিৎসকের কাছে যান৷ তবে অবশ্যই এই টক্সিনের কোন ঝুঁকি না থাকলেও, যিনি এই চিকিৎসা করছেন তার অভিজ্ঞতা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়৷ অনভিজ্ঞ কেউ যদি এমন করে থাকেন, তবে চোখ বন্ধ হয়ে যেতে পারে৷ ভ্রু’র উপর নিচে হয়ে যেতে পারে , অনেকক্ষেতে রোগী প্যারালাইসিস পর্যন্ত হয়ে যেতে পারেন৷

নির্দিষ্ট সময়েই আগেই যদি কেউ আবার বোটক্সের ডোজ নেন তবে তার ক্ষেত্রে কী কোন শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে?botox
সমস্যা তেমন কিছু একেবারেই নেই৷ কারণ ভারতে সাধারণত একই ধরনের টক্সিন ব্যবহার করা হয়ে থাকে৷ ফলে, কেউ যদি অন্য কোথাও থেকে এই ইনজেকশন নিয়ে থাকেন, তবে শারীরিক সমস্যা কিছুই দেখা যায় না৷ তবে, অনেকক্ষেত্রে চিকিৎসকেরা চাইনিজ বোটক্সও ব্যবহার করে থাকেন৷ তাই অন্য কোথাও গেলে অভিজ্ঞ চিকিৎসকের থেকে অবশ্যই জেনে নিতে হবে যে কোন বোটক্স তিনি আপনার শরীরে ইনজেক্ট করতে চলেছেন৷

কারা সাধারণত বোটক্স করেন বা করতে পারেন?
বোটক্স করানো জন্য সাধারণ কোন বয়স সীমা নেই৷ তবে বোটক্স যেহেতু বলিরেখা কমানোর জন্য করা হয়, তাই নির্দিষ্ট বয়সের পরেই রোগীরা আসেন৷ এই ট্রিটমেন্টের আগে রোগীর ডাক্তারি ইতিহাস নেওয়া জরুরি৷ বোটক্স যেহেতু মাসল ট্রিটমেন্ট, তাই রোগীর পেশিজনিত কোন সমস্যা আছে কিনা তা দেখে নেওয়া অত্যন্ত প্রয়োজনীয়৷ অনেক সময় দেখা যায়, বিয়ের আগে অনেকে বোটক্স করানোর জন্য আসেন৷ কারণ, মেকআপ করার পর হাসলে বা কথা বললেই মুখে ভাঁজ দেখা যায়৷ তাই শুধু সেইদিনের জন্যও অনেকে বোটক্স করে থাকেন৷

প্রতি ছ’মাস অন্তর বোটক্স নেওয়া কী প্রয়োজনীয়?
না একেবারেই না৷ অনেকেই মাত্র একবারই হয়ত বোটক্স করান৷ কিন্তু একবার নিলেই যে বার বার নিতে হবে, তার কোন মানে নেই৷ ছ’মাস বাদে বলিরেখা আবার আগের মতই হয়ে যায় এবং এর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যায় না৷ তবে যারা একবার বোটক্স করেছেন তাদের এটি এমনই পছন্দ হয়ে যায় ফলে ছ’মাস বাদে তারা নিজেদের রূপের টানেই ফিরে আসেন৷

বোটক্স ট্রিটমেন্ট নেওয়ার আগে কী কোন নিয়ম মেনে চলতে হয়?
বোটক্স এমন এক চিকিৎস,  যা যে কেউ যখন খুশি করতে পারেন৷ এর জন্য আলাদা করে কোন নিয়ম পালন করার প্রয়োজন নেই৷ মুম্বইয়ে বোটক্স এতটাই প্রচলিত যে, মহিলারা কিটি পার্টি করার মতো বোটক্স পার্টি করে থাকেন৷ এর জন্য কোন হাসপাতাল বা অপারেশন থিয়েটারের প্রয়োজন পরে না৷ একজন অভিজ্ঞ চিকিৎসক থাকলেই যেখানে খুশি এবং যখন খুশি এটি করা যায়৷

বোটক্স ট্রিটমেন্টের আর কোনও উপকারিতা রয়েছে কী?
বোটক্স বলিরেখা কমাতে যেমন অত্যন্ত পরিমাণে সক্ষম তেমন পেশিকে আরাম দিতেও এটি অনবদ্য কাজ করে৷ আবার অনেকের যদি মাইগ্রেনের সমস্যা থাকে, তবে তারাও কিন্তু ব্যাথা থেকে আরাম পেতে পারেন৷ আমার নিজের মাইগ্রেনের সমস্যা রয়েছে৷ তাই অনেকসময় ব্যথা থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য আমি নিজেই বোটক্স নিয়ে থাকি৷

বোটক্স করালে এই প্রভাব কী সঙ্গে সঙ্গে চোখে পড়বে?botox2
না বোটক্সের প্রভাব পড়তে অন্তত ছ’ থেকে সাতদিন সময় লাগে৷ সঙ্গে সঙ্গে কোন প্রভাব সেভাবে চোখে পড়ে না৷ যিনি বোটক্স নিয়েছেন তিনি তিনদিনেই বুঝতে পারবেন যে বলিরেখা কম হচ্ছে৷ সাত থেকে ১০ দিনের মধ্যে বলিরেখা একেবারেই কম হয়ে যাবে৷

পুরুষরাও বোটক্স নিতে পারেন?
অবশ্যই, নারী পুরুষ উভয়েই বোটক্স ট্রিটমেন্ট করাতে পারেন৷ শুধু পার্থক্য একটাই, তা হল ইউনিট৷ বোটক্সের ইনজেকশন ইউনিট মেপে দেওয়া হয়৷ তাই, মহিলাদের তুলনায় পুরুষদের পেশি যেহেতু তুলনামূলক বেশি হয়, তাই মহিলাদের থেকে পুরুষদের কিছু ইউনিট বেশি লাগে৷

বোটক্স ট্রিটমেন্টের খরচ কত?
বোটক্সের মোট খরচ সেইভাবে বলা যায় না৷ কারণ, প্রতিটি মানুষের আলাদা আলাদা ইউনিট বোটক্স প্রয়োজন হয়৷ তাই খরচও আলাদাই হয়৷ বোটক্সের ইউনিট প্রতি দাম হয়, তাই কার কত ইউনিট প্রয়োজন তার উপর খরচের পরিমাণ নির্ভর করে৷

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।