chicken_samusaবিকেলের নাস্তায় আমরা হালকা কিছু খেয়ে থাকি। নাস্তায় পুরি, সিঙ্গারা, সমুচা এগুলোর প্রাধান্যই বেশী থাকে। বাইরে তৈরী খাবার বলে অনেক সময় খেতে মন চায়না। আবার সমুচা তৈরী অনেক ঝামেলার হওয়ায় অনেকে নিজেরা তৈরী করতে চাননা।

কিন্তু ২০ মিনিটেরও কম সময়ে যদি তৈরি করা যায় তাহলে এই সমুচা বানাতে নিশ্চয়ই আপত্তি থাকবে না। কেবল মেয়েরা নয়, ছেলেরাও চট করে এখন বানিয়ে ফেলতে পারবেন এই মজাদার চিকেন-পুদিনা সমুচা! চলুন জেনে নেয়া যাক সমুচা তৈরির একটা সংক্ষিপ্ত পদ্ধতি।

উপকরণ:
মুরগির কিমা- ১ কাপ
পিয়াজ কিমা- ১/২ কাপ
পুদিনা কিমা- ১/৪ কাপ
কাঁচা মরিচ কিমা- স্বাদ মত
সয়াসস- ২ টেবিল চামচ
কালো গোল মরিচ গুঁড়া- ১ চা চামচ
কিসমিস- ২ টেবিল চামচ (ঐচ্ছিক)
আদা ও রসুন বাটা- ১/২ চা চামচ করে
টমেটো সস- ২ টেবিল চামচ
ফিলো পেস্ট্রি শিট- প্রয়োজনমত
ময়দা পানি দিয়ে গোলানো- অল্প
তেল- ২ টেবিল চামচ
গরম মশলা গুঁড়া- ১/২ চা চামচ
লবণ- স্বাদ মত

প্রণালী:
প্যানে তেল দিয়ে পিঁয়াজ কিমা লবণ সহকারে সামান্য ভেজে নিন। পেঁয়াজ চকচকে হলে আদা ও রসুন দিয়ে কিমা ভালো করে ভাজুন। মাঝারি জ্বালে ঢেকে দিলে কিমা থেকে পানি বের হবে।

পানি টেনে গেলে পুদিনা পাতা ছাড়া বাকি সমস্ত উপকরণ দিয়ে দিন ও ভালো করে ভাজতে থাকুন। কিমা একদম ভাজা ভাজা হয়ে এলে পুদিনার কিমা দিয়ে দিন। আরও ২ মিনিট ভেজে নামিয়ে ঠাণ্ডা করে নিন। তৈরি হয়ে গেলো সমুচার পুর।

ফিলো পেস্ট্রি শিটের মাঝে এই পুরকে আপনি রোল করবেন। ফিলো পেস্ট্রি শিট ডিপ ফ্রিজে রাখতে হয়। তাই চিকেনের পুরটা ঠাণ্ডা করার সময়েই পেস্ট্রি শিট বের করে রাখুন ফ্রিজ থেকে। প্যাকেটের মুখ খুলে একটি নরম সুতির কাপড় বা তোয়ালে দিয়ে মুড়িয়ে রাখুন শিটগুলো। নাহলে শুকিয়ে যাবে ও সমুচা বানাতে গেলে ফেটে যাবে।

শিটগুলো কাঁচি বা ছুরি দিয়ে সমান চার ভাগে কেটে নিন। বড় সমুচা বানাতে চাইয়ে ৩ ভাগ করতে পারেন। তারপর মাঝে পুর ভরে সমুচার মতন ভাঁজ করে নিন। শেষ প্রান্ত ময়দা গোলা সামান্য একটু দিয়ে লাগিয়ে দিন।

ডুবো তেলে সোনালি লাল করে ভেজে নিন। টমেটো সস দিয়ে পরিবেশন করলে ভালো লাগবে।

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।