চমক তৈরির কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। সে নিয়মেই কাজ করে যাচ্ছেন। আর বাজেট আর ছবির আড়ম্বরে সমৃদ্ধি থাকলে বছরে একটি ছবিই যে যথেষ্ট তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। তাই বর্ষার এ বছরের চলচ্চিত্র ‘মোস্ট ওয়েলকাম টু’। জনপ্রিয় ছবির সিক্যুয়েলের এত বর্ণাঢ্যতা এর আগে কখনও হয়নি। এমএ জলিল অনন্তর পরিচালনায় এবারের ছবিতে অনন্ত-বর্ষার কেমিস্ট্রি তাই আরও খানিকটা বিশদ আকারে।

Borsha-bd-actress

বর্ষার কথায়, ‘আমার কাছে মনে হয় আমাদের চলচ্চিত্র বাংলাদেশি অন্য নির্মাতা বা কলাকুশলীদের আরও বড় আকারে ভাবতে শিখিয়েছে। এটা অনেক ইতিবাচক। দর্শকদের ভালো কিছু দিলে তা যে দর্শকেরা গ্রহণ করে এবং সফলভাবে বাণিজ্য করা সম্ভব তা প্রমাণ করেছে অনন্ত।’ বর্ষার এ বছরের ছবি ‘মোস্ট ওয়েলকাম টু’-এর শুটিং হয়েছে থাইল্যান্ড, স্কটল্যান্ড, লন্ডন, সুইজারল্যান্ডসহ বেশ কটি দেশে। গান ও ফাইটয়ের দৃশ্যগুলো ধারণ করা হয়েছে বিভিন্ন দেশে। বর্ষার কথায়, ‘ভালোবাসা দিবসে আমাদের গানগুলো মুক্তি পেলেই দর্শকেরা বুঝবেন কতটা বর্ণাঢ্যতা আছে এই ছবিতে।’ উল্লেখ্য, ছবিটির শেষ পর্যায়ের শুটিং আজ থেকে এফডিসিতে টানা দুই সপ্তাহ চলবে বলে নির্মাতাসূত্রে জানা যায়। আর বর্ষা মনেপ্রাণে কাজ করছেন। আফিয়া নুসরাত বর্ষা ১৯৮৯ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারী সিরাজগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি তার পরিবারের বড় সন্তান। তার চার ভাই বোনঃ মীম, রাশী, মৌ এবং আকাশ। বর্ষা বাংলাদেশের একজন বিখ্যাত চলচিত্র অভিনেত্রী। তিনি তার ক্যারিয়ার শুরু করেন মডেল হিসেবে। ২০১০ সালে ইফতেখার চৌধুরী’র “খোঁজ: দ্যা সার্চ” চলচ্চিত্রের মাধ্যমে এম অনন্ত জলিলের সাথে তার অভিষেক ঘটে। তিনি তার ক্যারিয়ারে বৃহৎ বাজেটের ছবি যেমনঃ “খোঁজ: দ্যা সার্চ”, “হৃদয় ভাঙা ঢেউ”, “মোস্ট ওয়েলকাম” উল্লেখযোগ্য চরিত্রে ভূমিকা রাখেন।

বর্ষা বর্তমানে গ্রামীণফোনের ব্রান্ড অ্যাম্বাসেডরের দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া তিনি মুনসুন ফিল্মের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। ২০১১ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর তিনি অনন্ত জলিলকে বিয়ে করেন

টি মন্তব্য

মন্তব্য বন্ধ

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।