দেখতে দেখতে হ্যাট্রিক করে ফেললেন মিমি-সোহম চক্রবর্তী স্কোয়্যার! আপাতত টলিপাড়ায়, হিট জুটি হিসেবে দেখতে গেলে প্রযোজকদের আর পরিচালকদের প্রথম পছন্দ তাঁরাই।

সেই যে শুরুটা হয়েছিল রাজ চক্রবর্তীর ‘বোঝেনা সে বোঝেনা’ দিয়ে, দেখা গেল, ‘সেই ট্র্যাডিশন সমানে চলিতেছে’! এর পর বিরসা দাশগুপ্তর ‘গল্প হলেও সত্যি’-তেও দেখা যাবে মিমি-সোহমকে; আবার রবি কিনাগির ‘বেঙ্গলি বাবু ইংলিশ মেম’-এও তাঁরাই মাতাবেন রুপোলি পর্দা।

সত্যি কথা কী, এই জনপ্রিয় জুটি ব্যবহার করা আর করেই যাওয়া- যে কোনও ভারতীয় ছবিরই একটা স্বাভাবিক বাণিজ্যিক দিক। নট-নটী ‘সকলি হারায়’ পর্যায়ে যাওয়ার আগে যথেষ্ট রোশনাই ছড়ানোর মতো ব্যাপারটা আর কী! সে যেমন কথাটা উত্তম-সুচিত্রা জুটির ক্ষেত্রে সত্যি, তেমনই প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণার ক্ষেত্রে, আবার তেমনই এই হালফিলের সোহম-মিমি সম্পর্কেও।

এখন, পরিচালক-প্রযোজকরা না-হয় সাহস করে লগ্নি করছেন তাঁদের উপর, কিন্তু তাঁরা কি যথেষ্ট একটার চেয়ে আলাদা চিত্রনাট্য পাচ্ছেন অভিনয়ের জন্য?

সোহম-মিমির ক্ষেত্রে উত্তরটা এখনও পর্যন্ত ‘হ্যাঁ’! ‘বোঝেনা সে বোঝেনা’-র ডি-গ্ল্যামারাইজড চরিত্র আর ‘গল্প হলেও সত্যি’-র পাশের বাড়ির ছেলে-মেয়ের পর রবি কিনাগির ছবি একেবারে প্রথাগত নায়ক-নায়িকা হিসেবেই তুলে ধরছে তাঁদের।

কানাঘুঁষোয় খবর, ছবির গল্পে না কি শাহরুখ খান, সোনালি বেন্দ্রে অভিনীত ‘ইংলিশ বাবু দেশি মেম’ ছবির ছাপ থাকতে পারে। এই ছবিতে সব থাকবে, যা যা একটা মশলাদার বাণিজ্যিক ছবিতে থাকে।

‘বেঙ্গলি বাবু ইংলিশ মেম’-এ তাই মিমির পিছনে দলবল নিয়ে সোহমের নাচ-গান থাকবে, থাকবে সুন্দর সুন্দর বিদেশি জায়গায় গানের সঙ্গে পরস্পরকে আলতো আদর। আর ঢিশুম-ঢিশুমও থাকবে; ওটা বাদ দিলে আর নায়ক নায়ক হল কই!

তবে বিরসা দাশগুপ্ত রাজ চক্রবর্তীর পরিচয় করিয়ে দেওয়া জুটিকে নিজের ছবিতে ব্যবহার করলেও রবি কিনাগি প্রায় পুরো ‘বোঝেনা সে বোঝেনা’ দলকেই তুলে এনেছেন নিজের নতুন ছবিতে। ‘বেঙ্গলি বাবু ইংলিশ মেম’ ছবিতে সোহম-মিমির পাশাপাশি একটি ছোট হলেও গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করছেন পায়েল সরকার।

সঙ্গত কারণেই ফিসফিস শুরু হয়েছে টলিপাড়ায়, অন্যের ছবির এত একই বিষয় ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে নিজের ছবিতে কেন টেনে আনছেন রবি কিনাগি?

নিন্দুকদের বক্তব্য, রবি কিনাগির অন্য পরিচালকের পছন্দের জুটি ব্যবহার করার কারণটা না কি হতে পারে নিজের পছন্দের জুটি ভেঙে যাওয়া! সেই জুটিটা তাঁর আর জিৎ-এর। বেশ কয়েক বছর ধরে রবি কিনাগির ছবি মানেই ছিল জিৎ-এর নায়কের ভূমিকা বাঁধা; এই ছবিতেই তার ব্যতিক্রম হল।

তাই জোর চর্চা শুরু হয়েছে চারিদিকে। পরিচালক অবশ্য এক ফুঁয়ে উড়িয়ে দিচ্ছেন সেই সব গুজব। ‘আমি এমন নায়ক-নায়িকা নিয়ে কাজ করতে চাইছিলাম যাদের জুটি ইন্ডাস্ট্রিতে পুরনো হয়ে যায়নি এবং যাদের নিয়ে আমিও আগে কাজ করিনি’, এটুকু বলেই বিতর্কে ক্ষান্ত দিচ্ছেন রবি কিনাগি।

এরই পাশাপাশি, বিতর্কের আগুনে কনকনে ঠান্ডা জল ঢেলে দিচ্ছেন মিমি চক্রবর্তীও। তুলে ধরছেন, জুটি হিসেবে তাঁরা কেন পরিচালকদের পছন্দ, তার জুতসই জবাবদিহি- ‘সোহম আর আমি খুব ভাল বন্ধু, আমার ধারণা সেই বন্ধুত্বের রসায়নটা সেলুলয়েডেও খুব স্পষ্ট বোঝা যায়’!

অন্য দিকে, পায়েল সরকারও এড়িয়ে যাচ্ছেন জুটি ব্যবহারের অভিযোগ। মানতে চাইছেন না, ‘বোঝেনা সে বোঝেনা’ থেকে অনুপ্রাণিত হয়েছে ‘বেঙ্গলি বাবু দেশি মেম’-এ তাঁকে কাস্ট করার পরিচালকের সিদ্ধান্ত। ‘এই ছবিতে আমি একজন এয়ার-হোস্টেসের চরিত্রে অভিনয় করছি। চরিত্রটা যথেষ্ট স্টাইলিশ! তাহলে আর বোঝেনা সে বোঝেনা-র সঙ্গে মিল কোথায়’? পাল্টা প্রশ্ন ছুঁড়ে দিচ্ছেন পায়েল।

নিন্দুকরা অবশ্য এত সহজে দমবার নন! তাঁরা বলছেন, যোগসূত্র একটা আছেই। ছোট চরিত্র হলেও এই ছবিতে পায়েলের একজন প্রেমিক থাকবে। সে কে, সেটা পায়েল ভাঙতে না চাইলেও অনুমান, চরিত্রটিতে অভিনয় করবেন আবীর চট্টোপাধ্যায়! মোটের উপর, বিতর্ক কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না আপাতত রবি কিনাগি-র! সে সব সত্যি না মিথ্যে, তার উত্তর ছবি মুক্তি পেলেই জানা যাবে।

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।