Bagha-Eid-Mala-03উৎসবের দেশ বাংলাদেশ। বছরের অনেকটা সময় জুড়ে রয়েছে বিভিন্ন উৎসব। সাম্প্রদায়িক দেশ হওয়ায় প্রতিটি ধর্মের অনুষ্ঠান আনন্দঘন পরিবেশেই পালিত হয়। সকল ধর্মের মানুষের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ন সম্পর্ক বিরাজ করায় এ সকল অনুষ্ঠানগুলো শান্তিপূর্নভাবে পালিত হয়। এখন আমাদের দরজায় কড়া নাড়ছে শারদীয় দূর্গা পূজাঁ ও কোরবানীর ঈদ। আর এ ঈদ ও পূজাঁকে সামনে নিয়েই যত আয়োজন, যত উৎসাহ, উদ্দীপনা।

অন্যান্য দেশের চেয়ে বাঙ্গালীদের উৎসব নিয়ে আবেগটা যেন একটু বেশি গভীর ও গাঢ়। সমগ্র দেশেই এর মধ্যেই ঈদ ও পূজাঁর প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে। আর উৎসবরে জন্য প্রথমেই সংগ্রহ হয় নতুন পোশাক। পোশাকের বিষয়টি এলেই চলে আসে এবার ঈদ ও পূজাঁর ফ্যাশনটা কোন আঙ্গিকে আয়োজন হবে। এ খোজ খবর নেয়ার জন্য যেতে হবে ফ্যাশন হাউজ, বুটিক শপ, টাঙ্গাইলের শাড়ি প্রস্তুতকারী, মিরপুরের বেনারসী পল্লী এবং নারায়নগঞ্জ জামদানি শাড়িসহ বিভিন্ন,পোশক তৈরি কারকদের নিকট।

বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজ, বুটিক শপ ক্রেতাদের চাহিদা ও আগ্রহের কথা বিবেচনা করে নিত্য নতুন ডিজাইনের পোশাক তৈরিতে বেশি উৎসাহি। তাই ঈদ ও শারদীয় পূজাঁকে ঘিরে ফ্যাশন হাউজগুলো অসংখ্য দৃষ্টি নন্দিত পোশাক দিয়ে শো-রুম সাজিয়েছে।

এ পোশাকগুলোর দামও হাতের নাগালেই। ডিজাইন ভেদে পাঞ্জাবীর মূল্য একেক রকম। বড়দের পাশাপাশি বাচ্চাদের পাঞ্জাবীও পাওয়া যায়। পাঞ্জাবী পায়জামা সেট ৫৫০ থেকে ৩২০০ টাকার মধ্যে পেয়ে যাবেন। আর বড়দের পাঞ্জাবী মিলবে ৮০০ থেকে ৩৫০০ টাকায়। পাঞ্জাবীর সঙ্গে আরো একটি পোশাক বিশেষভাবে চলে আসে তা হলো রমনীদের শাড়ি। বাঙ্গালী রমনীদের শাড়িতে ব্যাপক সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি পায়। সে  কারনে ফ্যাশন হাউজগুলোতে নারীদের অন্যান্য পোশাকের পাশাপাশি শাড়িকে বেশ গুরুত্ব দেয়।

বিভিন্ন আকষর্নীয় ডিজাইনের শাড়ি ইতোমধ্যে শো-রুমগুলোয় শোভা পাচ্ছে। সুতির মধ্যে কোটা শাড়ি, হাফ সিল্ক, রাজশাহী সিল্ক, টাঙ্গাইলের তাতেঁর শাড়ি, বলাকা সিল্ক ও মসলিন শাড়ি প্রচুর পরিমানে বিভিন্ন ডিজাইনের পাওয়া যাচ্ছে। যার মধ্যে সুতি শাড়ি পাওয়া যাবে ৬০০ থেকে ২৮০০ টাকার মধ্যে, টিস্যু কাপড়ের ডিজাইনের শাড়ির মূল্য ১৮০০ থেকে ৪৫০০- টাকা। মসলিন ৩২০০ থেকে ৭৫০০ টাকা। তাতের শাড়ি পাওয়া যাবে ৩৫০ থেকে ২৬০০
টাকাতেই। জামদানি শাড়ি ৩০০০ থেকে ১৫০০০ টাকাতেই মিলবে। সকল বয়সের মানুষের ব্যাক্তিত্ব ফুটিয়ে তুলতে শার্ট ব্যাপক সহায়তা করে। তাই তরুনদের ব্যাপক আগ্রহের কথা মাথায় রেখে ব্যান্ডগুলো বেশ আর্কষনীয় ডিজাইনের শার্ট নিয়ে এসেছে। লাখো তরুনদের প্রিয় ব্যান্ড এর মধ্যে অন্যতম হলো ইস্টাসি, ইয়োলো, মেনজ্ ক্লাব, রিচম্যান, ইজি ফ্যাশন, ব্যাঙ, প্লাস পয়েন্ট ইত্যাদি। এসকল ব্যান্ডে হাফ স্লিভ শার্ট মিলবে ৯০০ থেকে ১৫০০টাকাতে, ফতুয়া স্টাইলের কটন শার্ট পাওয়া যাবে ১৪৯০ থেকে ১৮০০টাকায়।সিনথেটিক ও মিক্সড কাপরের ফুলশার্ট পরবে ১১০০ থেকে ২০০০টাকার মধ্যেই।

পোশাক ক্রয়ের ক্ষেত্রে সকলেরই আবহাওয়ার কথা মনে রাখতে হয়।আর যেহেতু কিছু দিন পওে হাজির হচ্ছে শীতকাল। ঈদ ও শারদীয় পূজাঁকে একসাথে বরণ করে ব্যাপক আনন্দ উদ্যাপন করাই আমাদের একান্ত কাম্য। তাই খুশি যেন ম্লান না হয়ে যায় সেদিক লক্ষ্য রেখেই পোশাক নিবার্চন করতে হবে। সবাইকে আসন্ন উৎসবে রাঙ্গিয়ে দিতে ফ্যাশন হাউজগুলো সর্বদা সচেষ্ট রয়েছে।

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।