বমির ঘরোয়া চিকিৎসা !

১) অজানা কারণে বমি :: দুটি লবঙ্গ ১০০ মিলি পানিতে দিয়ে সেদ্ধ করুন। পানি ফুটে যখন অর্ধেক জয়ে যাবে তখন ছেঁকে নিয়ে স্বাদ অনুসারে মিছরি মিশিয়ে খেতে দেবেন এবং পাশ ফিরে শুতে বলবেন। সারা দিনে ৪ ঘন্টা পরপর ৪ বার পান করলে বমি বন্ধ হয়ে যাবে।বমি

২) বমি-বমি ভাব :: দুটি লবঙ্গ গুঁড়ো করে ৩০ মিলি পানিতে মিশয়ে একটু গরম করে খেলে গা পাক দেওয়া সেরে যায়। বমি-বমি ভাব থাকে না।

৩) গর্ভাবস্থায় বমি :: গর্ভাবস্থায় বমিতে দুটি লবঙ্গ মিছরির সাথে চূর্ণ করে আধ কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে খেলে আরাম পাওয়া যায়।

৪) গাড়ি ভ্রমনে বমি :: বাস, ট্রেন ইত্যাদি ভ্রমনে যাদের বমি হয় তারা সাথে সবসময় লবঙ্গ রাখবেন। গাড়িতে উঠেই লবঙ্গ চুষতে থাকবেন। এতে বমি হওয়ার প্রবণতা হ্রাস পাবে।

৫) প্রচন্ড গরমে বমি :: ৩ চা চামচ ধনে গুঁড়ো ২৫০ মিলি পানিতে ১ ঘন্টা ভিজিয়ে রাখুন, স্বাদের জন্য ১ চামচ মিছরি গুঁড়ো দেওয়া যেতে পারে। ১ ঘন্টা পর ঐ পানি ছেঁকে ১ ঘন্টা পরপর ছোটদের ১ চামচ করে এবং বড়দের ৩০ মিলি করে খাওয়াতে থাকুন। এতে গরমের জন্য বমি হলে প্রশমিত হবে। গরমের জন্য মাথা ঘুরলে, বমি হলে বা বুক ধড়ফড় করলেও এতে উপকার পাওয়া যায়।

৬) বমি হওয়ার মত অবস্থা :: একটা কাগজি লেবুকে দু’টুকরো করুন। এরপর এতে বিট লবন গুঁড়ো এবং গোলমরিচ গুঁড়ো লাগিয়ে রোগীকে ধীরে ধীরে চেটে খেতে দিন। এতে প্রায় সঙ্গে সঙ্গে বহমি হওয়ার মত অবস্থা দূর হবে।

৭।)বমির সাথে বদহজম :: লবঙ্গ ৫টি এবং মিছরি ১০ গ্রাম একসাথে খুব করে পিষে নিয়ে ৩০ মিলি পানিতে মিশিয়ে খেলে বমি ও বমিভাব সহ বদহজম দূর হয়।

৮) রক্ত বমি :: জিরা ৩ গ্রাম ও মিছরি ৬ গ্রাম মিশিয়ে গুঁড়ো তৈরিই করে মুখে দিয়ে পানি খেলে বমিতে রক্ত আসা বন্ধ হয়ে যায়। প্রয়োজনে এই গুঁড়ো দিনে ২-৩ বার দেওয়া যায়

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।