Manicure-300x187আমাদের হাত এবং নখ আমাদের অযত্নের কারণে বিভিন্নভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। যেমন: নখের রং বদলে হলদেটে ভাব হওয়া, কখনো বা নখ ভঙ্গুর হয়ে যায়। একবার ভাবুন তো, আপনার হাতের সঙ্গে প্রতিদিন আপনি কি কি করছেন: যখন আমরা গোসল করি বা হাত ধুই অথবা বাসন মাজি, আমাদের হাত গরম পানিতে এবং ঠান্ডা পানিতে ভিজে। মোটকথা সবরকম আবহাওয়া, আর্দ্রতা ও জিনিসপত্র আমাদের হাত দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। আর তাই প্রায়ই যখন মহিলাদের ভাঙ্গা, ফেটে যাওয়া নখ দেখা যায় তখন অবাক হবার সত্যিই কিছুই নেই। এসব সমস্যা থেকে রেহাই পেতে ও নখ ভালো রাখতে প্রথমেই দরকার পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা। সে জন্য নিয়মিত হাত-পায়ের যত্ন নিতে হবে। এর জন্য কিছু বিশেষ টিপস মাথায় রাখুন:
নখের একটি ভালো দৈর্ঘ্য নির্বাচন করুন: এখানে ভালো দৈর্ঘ্য বলতে এটা বোঝানো হচ্ছেনা যে আপনি যে দৈর্ঘ্য পছন্দ করেন। কারণ, আপনি হয়তো ৩ ইঞ্চি নখ পছন্দ করেন, কিন্তু ভাবুন তা কতটা বাস্তব সম্মত? মাথায় রাখুন যে আপনি দৈনিক কি কি করেন বা আপনার পেশা কি। যদি নখ ভাঙার সমস্যা থাকে, তবে নিয়মিত নেইল হার্ডনার ব্যবহার করতে পারেন। এটি নেইলপলিশের মতো বাজারে কিনতে পাওয়া যায়।
নখ কাটা ও শেপ সুন্দর থাকার প্রথম শর্ত হল পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা। তাই প্রথমে আপনার নখকে যত্ন সহকারে পরিষ্কার করুন। তারপর নখের বাড়তি অংশ কাটুন। নখ কাটার ক্ষেত্রে শেপ করে কাটার বিষয় চলে আসে। সেক্ষেত্রে নখ রাখতে চাইলে কিছু বাড়তি রেখে, আপনার ব্যক্তিত্ব এবং স্টাইলের সাথে মানিয়ে যায় এমন শেপেই নখ কাটুন। আর নখ বড় হয়ে গেলে তা নেল কাটার দিয়ে কেটে ফাইল করে নিন।
নখের ফ্যাশন আজকাল ফ্যাশন করে অনেকেই বেশ বড় নখ রাখেন, সে ক্ষেত্রে অবশ্যই খেয়াল রাখা উচিত সে সেটা আপনার লাইফ স্টাইলের সঙ্গে যায় কিনা। হাত দিয়ে প্রতিদিন কি ধরনের কাজগুলো আপনাকে করতে হয়, নখের যত্ন করবার সময় ইত্যাদি।
নখ সাজাতে দীর্ঘবছর ধরেই নারীরা নখকে সাজিয়ে তুলতে ব্যবহার করছে নানা উপকরণ। এর মধ্যে আলতা, মেহেদী, নানা রঙের নেইল পলিশ ইত্যাদি ছাড়াও রয়েছে স্টোন, গ্লিটার, নকল নখের ব্যবহার।
নেইল পলিশ চট-জলদি নখ সাজাতে নেইল পলিশের জুড়ি নেই। পোশাকের রঙের সাথে মেলাতে কিংবা পছন্দসই রঙের নেইলপলিশ আপনার নখকে করে তুলবে চকচকে ও আকর্ষণীয়। নেইল পলিশ লাগানোর সময় প্রয়োজনীয় কিছু জিনিস যেমন কটনবল, রিমুভার, টাওয়েল, নিউজ পেপার ও কিয়ার নেইলপলিশ আগেই হাতের কাছে রাখুন। নেইলপলিশ এমন জায়গায় বসে লাগান যেখানে পর্যাপ্ত আলো-বাতাস আছে। কালার নেইল পলিশ লাগানোর আগে এক কোড কিয়ার নেইল পলিশ লাগান। এবার কিয়ার পলিশ শুকিয়ে গেলে আপনার পছন্দের কালারটি লাগান। তা শুকিয়ে গেলে এর উপর আবার একবার কিয়ার নেইলপলিশ লাগান এবং শুকিয়ে নিন।
স্টোন স্টিকার
ইদানিং নেইলপলিশের সাথে নখের সাজসজ্জা ব্যবহার হচ্ছে নানা ধরনের স্টোন, স্টিকার ইত্যাদি। টুজার, নেইল জেল বা নেইল গাম দিয়ে এগুলো সহজেই নখে বসানো হয়। প্রথমে স্টোন বা স্টিকার গাম দিয়ে নখে লাগিয়ে নিন। তারপর শুকিয়ে গেলে তার উপর নেইল পলিশ লাগান।
গ্লিটার
বিয়ের পার্টিতে কিংবা জমকালো অনুষ্ঠানে নখের সাজে ভিন্নতা আনতে নখে গ্লিটার ব্যবহার করতে পারেন। নেইল জেল কিংবা গাম দিয়ে নখের উপর গ্লিটার লাগিয়ে তার উপর ঘন করে নেইল পলিশ লাগান। আবার গ্লিটার যুক্ত নেইল পলিশও লাগাতে পারেন।
নকল নখ
যারা কাজের জন্য বড় নখ রাখতে পারেন না কিংবা স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে ছোট নখ রাখেন তারা ফ্যাশনের জন্য প্রয়োজনে ফেইক নেইল কিংবা নকল নখ লাগাতে পারেন। এগুলো সাধারণত ফ্রি শেপের এবং সাদা হয়। সেক্ষেত্রে আপনার আঙ্গুলের সঙ্গে মিলিয়ে তা কেটে ফাইল করে নিন তারপর নেইল গাম দিয়ে নখে লাগান। পরে পছন্দসই নেইলপলিশ লাগাতে পারেন।
নখের যত্ন
নখের যত্নে কিছু নিয়ম মানা জরুরী সেই সাথে করতে হবে নিয়মিত মেনিকিউর এবং পেডিকিউর। নেইল পলিশ লাগানোর আগে ভাল করে পুরানো নেইল পলিশ তুলে ফেলতে হবে এবং অবশ্যই নেইল রিমুভার তুলোতে ভিজিয়ে পরিষ্কার করতে হবে।
টিপস
০ নখ সুস্থ ও সুন্দর রাখার ক্ষেত্রে কিছুদিন পর পর ম্যানিকিউর প্যাডিকিউর করা জরুরী।
০ নেইল পলিশ ব্যবহার করার সময় তা ঢেকে রেখে ব্যবহার করুন। ঢাকনা খোলা রাখলে নেইল পলিশ শুকিয়ে যাবে।
০ নেইল পলিশ শুকিয়ে গেলে তার মধ্যে গ্লিসারিন অথবা রিমুভার ঢেলে ভালভাবে ঝাঁকিয়ে নিন। দেখবেন আবার আগের মতো ব্যবহার করতে পারছেন।
০ নেইল পলিশ বেশী ঘন করে না লাগানোই ভাল। নখে পেইন্ট বা অন্য কিছু লাগানোর পর খুব পাতলা করে নেইল পলিশ লাগাবেন।
০ নেইল পলিশ লাগানোর আগে তা কিছুক্ষণ ঝাঁকিয়ে নিন।
০ নেইল পলিশ, স্টোন, গ্লিটারের উজ্জ্বলতা বাড়াতে প্রেট্রোলিয়াম জেলি লাগাতে পারেন।
০ প্রতিবার নেইল পলিশ লাগানোর পর তা সতর্কতার সাথে শুকিয়ে নিন।
ফ্রেঞ্চ ম্যানিকিউর নখের স্বাভাবিকতা ধরে রেখে অর্থাৎ প্রাকৃতিক রঙটাকে একটু উজ্জ্বল করাই হল ফেঞ্চ ম্যানিকিউর। এক্ষেত্রে নখের সামনের দিকে সাদা বা অন্য কোনো কালার লাগানো হয়, নখের নিয়মিত যত্নে ফ্রেঞ্চ ম্যানিকিউর বেশ জনপ্রিয়।
নেইল রিমুভার
০ নেইল রিমুভর দিয়ে খুব সহজেই নেইল পলিশ তোলা যায় ফলে অন্য কিছু দিয়ে ঘষাঘষির হাত থেকে নখ থাকে সুরক্ষিত।
০ তুলা বা টিস্যুতে রিমুভার লাগিয়ে তা নখে হালকা চাপ দিয়ে তুলুন।
০ রিমুভার শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন।
০ রিমুভার লাগানো শেষ হলে হাত ভালভাবে ধুয়ে ফেলুন।
০ রিমুভার লাগানোর সময় এবং লাগানো শেষ হলে রিমুভারের মুখ ভালোভাবে লাগিয়ে রাখুন।
সতর্কতা
০ দাঁত দিয়ে নখ কাটবেন না। নেইল কাটার ব্যবহার করুন। আর প্রতিবার নখ কাটার পর নখ ফাইল করতে ভুলবেন না।
০ সবসময় নেইলপলিশ লাগাবেন না। তাতে নখের উজ্জ্বলতা স্পষ্ট হয়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে।
০ ভেজা হাতে গ্লাভস পরবেন না। এতে নখের ক্ষতি হয়।
০ সস্তা নেইল পলিশ এড়িয়ে চলুন।
০ প্রতিবার খাওয়ার শেষে নখের কোথাও লেগে থাকা খাবার ভালভাবে হ্যান্ড ওয়াশ দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
০ ঘুমানোর আগে এবং গোসলের পর হাত, পায়ে ভ্যাসলিন লাগালে উপকার পাওয়া যাবে।

টি মন্তব্য

একটি মন্তব্য

  1. Ohm you article too long please post again.thanks
    I am pig http://hermesoutlet.rxusainternational.net/

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।