2013-03-28-17-08-32-51547910eeaba-untitled-11

একটা সময় ছিল যখন চশমা চোখে থাকলেই লোকে করুণার চোখে তাকাত, আহা! বেচারার চোখ খারাপ! এখন আর সে সময়টা নেই। কারণ রাস্তায় বের হলেই দেখা যায়, প্রতি দশজনের মধ্যে চারজনেরই চোখ খারাপ! এছাড়া এখন ক্ষীণদৃষ্টির লোকরা তো বটেই, অনেকে ফ্যাশনের অংশ হিসেবেও চশমা পরে। কারণ ‘লুক’ পাল্টানোর জন্য চশমার জুড়ি নেই!

চশমা যে কারণেই পরা হোক না কেন, তার ফ্রেম হওয়া চাই চেহারার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ। তাই চশমার ফ্রেম কিনুন মুখের গড়নের মানিয়ে যায় এমন আকারের। যাদের মুখ গোলাকার তারা গোলাকৃতির ফ্রেম ছাড়া যেকোনো ফ্রেম পরলেই ভালো লাগবে। লম্বাটে চেহারার জন্য ভালো দেখাবে ওভাল এবং আয়তাকার ফ্রেম। গোলাকৃতির ফ্রেমও চাইলে পরে দেখতে পারেন। সবচেয়ে ভালো হয় চশমার ফ্রেম কেনার সময় সঙ্গে কাউকে নিয়ে গেলে। আপনি বিভ্রান্তিতে পড়লে সাথের মানুষটি আপনাকে সাহায্য করতে পারবে।

বাজারে চশমার ফ্রেম পাওয়া যায় নানা ধরনের, নানা রঙের। এখনকার চশমার ট্রেন্ড হলো রঙিন ফ্রেম। সেটা একরঙাও হতে পারে, আবার শেডেরও হতে পারে। চলছে অ্যানিমেল প্রিন্টের চশমাও! এগুলো পছন্দ না হলে পরতে পারেন কালো, সোনালি বা রূপালি রঙের ট্র্যাডিশনাল ফ্রেম। মেটাল, প্লাস্টিক বা ফাইবার – যেকোনো ধরনের চশমার ফ্রেম বেছে নিতে পারেন নিজের জন্য।

এলিফেন্ট রোড, ফার্মগেটে রয়েছে প্রচুর চশমার দোকান। প্রায় প্রতিটা চক্ষু হাসপাতালেই রয়েছে তাদের নিজস্ব চশমার দোকান। এসব দোকানে পাবেন নানা ব্র্যান্ডের এবং দামের চশমার ফ্রেম। হালফ্যাশনের লেটেস্ট চশমার ফ্রেম পেতে চাইলে চলে যেতে পারেন এলিফেন্ট রোডের ‘ফ্রেমস’ এ। পৃথিবীর বিখ্যাত ব্র্যান্ড থেকে শুরু করে ননব্র্যান্ড – সব ধরনের ফ্রেম পেয়ে যাবেন এখানে, এবং বেশ কম দামেই!

যারা ক্ষীণদৃষ্টি অর্থাত্‍ চোখে সমস্যার কারণে চশমা ব্যবহার করেন তাদের জন্য রইল কিছু পরামর্শ –

*অবশ্যই বাড়তি চশমা বানিয়ে রাখুন। সম্ভব হলে একজোড়া বাড়িতে এবং একজোড়া ব্যাগে।

*চশমা ক্ল্যাচে না রেখে প্লাস্টিকের বক্স ব্যবহার করুন।

*বাড়তি চশমা কোথায় রেখেছেন সেটা বাড়ির সবাই জানিয়ে রাখুন। যাতে প্রয়োজনে তারা আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

*চশমা পরিষ্কার করুন শুধু পানি দিয়ে, ব্রাশ বা সাবান ব্যবহার করবেন না। ট্যাপের পানি ছেড়ে চশমা ধুয়ে চশমা সোজা করে রেখে দিন বাতাসে শুকানোর জন্য, মুছবেন না।

*চশমা মুছুন শুকনো, পরিষ্কার, নরম কাপড় দিয়ে।

*ছয় মাস অন্তর অন্তর চোখের চেকআপ করান।

*যারা মাইনাস পাওয়ারের চশমা পরেন তারা চেষ্টা করুন সব সব সময় চশমা পরে থাকতে।

টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Note: All are Not copyrighted , Some post are collected from internet. || বিঃদ্রঃ সকল পোস্ট বিনোদন প্লাসের নিজস্ব লেখা নয়। কিছু ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত ।